StudyWithGenius

Class 10 Model Activity Task Part 8 November New 2021 | Combined Model Activity Task | দশম শ্রেণী মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক | Bengali, English, History, Geography

Class 10 Model Activity Task Part 8 November New 2021 | Combined Model Activity Task

class 10 model activity task part 8 answer, class 10 model activity task part 8 bengali, class 10 model activity task november, class 10 model activity task part 8 chemistry, class 10 model activity task part 8 download, class 10 model activity task part 8 english, class 10 model activity task part 8 exercise, class 10 model activity task part 8 full, class 10 model activity task part 8 geography, class 10 model activity task part 8 mathematics, class 10 model activity task part 8 maths, class 10 model activity task part 8 notes, class 10 model activity task part 8 of science, class 10 model activity task part 8 online, class 10 model activity task part 8 question answer, class 10 model activity task part 8 solution, class 10 model activity task part 8 wbbse, class 10 model activity task part 8 west bengal board, class 10 model activity task part 8 with answers, class 10 combined model activity task answer, class 10 combined model activity task bengali, class 10 combined model activity task download, class 10 combined model activity task english, class 10 combined model activity task full, class 10 combined model activity task geography, class 10 combined model activity task mathematics, class 10 combined model activity task maths, class 10 combined model activity task science, class 10 combined model activity task online, class 10 combined model activity task

Class 10 Model Activity Task Part 8 November / Class 10 Combined Model Activity Task হল ২০২১ সালের জুলাই থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত তোমাদের যে সমস্ত Model Activity Task দেওয়া হয়েছিল সেখান থেকে বাছাই করা Important কিছু প্রশ্ন ।

এখানে আমরা Class 10 Model Activity Task Part 8 November / Class 10 Combined Model Activity Task এর সমস্ত প্রশ্ন ও উত্তর নিয়ে চলে এসেছি । ২০২১ সালের এটাই সর্বশেষ Model Activity Task। এই অ্যাক্টিভিটি টাস্কে 50 নম্বরের প্রশ্ন দেওয়া রয়েছে যেগুলো তোমাদের সমাধান করে বিদ্যালয়ে জমা দিতে বলা হয়েছে । এখানে দেওয়া প্রশ্ন গুলি খুবই গুরুত্বপূর্ণ । এর উপর ভিত্তি করেই সম্ভবত তোমরা পরবর্তী শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হবে । সুতরাং, খুবই মন দিয়ে তোমরা নিচের প্রশ্নোত্তর গুলি লিখবে ।

class 10 model acticvity task part 8 12
SWG Academy

Class 10 Model Activity Task Bengali Part 8 November

Class 10 Combined Model Activity Task

বাংলা (প্রথম ভাষা)

দশম শ্রেণি

১ . ঠিক উত্তরটি বেছে নিয়ে লেখো : 

১.১ তপনের লেখা যে গল্পটি ‘ সন্ধ্যাতারা ‘ পত্রিকায় ছাপা হয়েছিল— 

ক ) রাজা ও রানি 

খ ) অ্যাকসিডেন্ট 

গ ) প্রথম দিন 

ঘ ) স্কুলে ভরতি হওয়ার দিনের অভিজ্ঞতা 

উত্তর : গ ) প্রথম দিন

১.২ পাঠ্য ‘ অসুখী একজন ’ কবিতাটির অনুবাদক– 

ক ) শঙ্খ ঘোষ 

খ ) নবারুণ ভট্টাচার্য 

খ ) উৎপলকুমার বসু 

ঘ ) মানবেন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় 

উত্তর : খ) নবারুণ ভট্টাচার্য

১.৩ ‘ আফ্রিকা ’ কবিতাটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের যে কাব্যগ্রন্থে রয়েছে— 

ক ) মানসী 

খ ) চিত্রা 

গ ) পত্রপুট 

ঘ ) নৈবেদ্য 

উত্তর : গ) পত্রপুট

১.৪ ‘ বাবু কুইল ড্রাইভারস ’ কথাটি বলতেন— 

ক ) ওয়াটারম্যান 

খ ) লর্ড কার্জন 

গ ) উইলিয়াম জোন্স 

ঘ ) উইলিয়াম হেস্টিংস 

উত্তর : খ ) লর্ড কার্জন

১.৫ যে কাব্যগ্রন্থটি শঙ্খ ঘোষের লেখা নয় 

ক ) দিন ও রাত্রি 

খ ) দিনগুলি রাতগুলি 

গ ) পাঁজরে দাঁড়ের শব্দ 

ঘ ) ধূম লেগেছে হৃৎ কমলে 

উত্তর : ক) দিন ও রাত্রি

২. কম – বেশি ২০ টি শব্দের উত্তর লেখো : 

২.১ ‘ সমানি সম শীর্ষাণি ঘনানি বিরলানি চ ’ – কথাটির অর্থ কী ? 

উত্তর : প্রশ্ন উদ্ধৃত বাক্যটির অর্থ হল – সব অক্ষর সমান, প্রতিটি ছত্র সুশৃঙ্খল পরিচ্ছন্ন।

২.২ ‘ আফ্রিকা ’ কবিতায় দিনের অন্তিমকাল কীভাবে ঘোষিত হয়েছিল ?

উত্তর : অশুভ ধ্বনিতে ঘোষিত হয় দিনের অন্তিমকালে।

২.৩ ‘ আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি ‘ কবিতায় কবি ‘ পায়ে পায়ে হিমানীর বাঁধ ‘ বলতে কী নির্দেশ করেছেন ? 

উত্তর : হিমানী শব্দের অর্থ হলো বরফের বাঁধ। এখানে কবি প্রতি পদক্ষেপে বিপদের কথা বলেছেন বা প্রতি পদক্ষেপে হিমানী বাঁধের বাধার কথা বলেছেন।

২.৪ ‘ মাভৈ : মাভৈ : ’ – এমন উচ্চারণের কারণ কী ? 

উত্তর : বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ‘প্রয়োল্লাস’ কবিতায় “প্রলয়োল্লাস” কবিতায় মাভৈঃ মাভৈঃ বলে অভয়বাণী দিয়েছেন। তিনি বলেছেন প্রলয় আসছে দেখে ভয় পেলে চলবে না। কারণ, প্রলয়ের এই ধ্বংসাত্মক রূপের আড়ালেই আছে নবসৃষ্টির বীজ। এই জগৎজোড়া প্রলয় এলেই জরায় মৃতবৎ মানুষদের লুকানো প্রাণের বিনাশ হবে এবং মহানিশার শেষে নতুন সূর্য উঠবে, যা ভারতের ভাগ্যাকাশে মুক্তির প্রতীক রূপে দেখা দেবে।

২.৫ … দুজন বন্ধু নোক আসার কথা ছিল , ’ – বন্ধুদের কোথা থেকে আসার কথা ছিল ? 

উত্তর : শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের পথের দাবী গল্পে উল্লেখিত অংশে উদ্ধৃত লাইনটি আমরা দেখতে পাই। এনাঞ্জাং থেকে আসার কথা ছিল।

Page Title

৩. প্রসঙ্গ নির্দেশসহ কম – বেশি ৬০ টি শব্দের মধ্যে উত্তর লেখো : 

 

৩.১ ‘ তোরা সব জয়ধ্বনি কর । ‘ – কার জয়ধ্বনি করতে কবির এই আহ্বান ? 

কেন তার ‘ জয়ধ্বনি করতে হবে ? 

উত্তর : প্রশ্নোদ্ধৃত উক্তিটি কাজী নজরুল ইসলামের লেখা “অগ্নিবীনা” কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত ‘প্রলয়োল্লাস’ কবিতা থেকে গৃহীত।আলোচ্য উক্তিটিতে কবি সাধারণ দেশবাসীকে জয়ধ্বনি করতে বলেছেন। তিনি কল্পনা করেছেন, কালবৈশাখীরূপী তরুণের দল সমাজ থেকে অন্যায়, অবচার ও বৈষম্য দূর করতে অচিরেই আবির্ভূত হবে। সমস্ত পাপাচার সমাজ থেকে মুছে যাবে, ধুয়ে যাবে যাবতীয় অসুন্দর। তাই ‘নূতনের কেতন’ ওড়ানো ‘কালবোশেখির ঝড়’ আসন্ন দেখে তাকে যথাযথভাবে বরণ করে নেওয়ার জন্য সকলকে জয়ধ্বনি করতে বলেছেন।

৩.২ ‘ খুবই গরিব মানুষ হরিদা । 

হরিদার পরিচয় দাও । তাঁর দারিদ্র্যের ছবি ‘ বহুরূপী ‘ গল্পে কীভাবে প্রতিভাসিত হয়েছে ? 

উত্তর : জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক সুবোধ ঘোষের লেখা ‘বহুরূপী’ গল্পের প্রধান চরিত্র হরিদা I তিনি খুবই গরিব মানুষ। পেশাগত দিক থেকে তিনিএকজন বহুরূপী।
গল্পের নায়ক হরিদা পেশায় বহুরূপী। কিন্তু বহুরূপী সেজে তার অর্থ উপার্জন তেমন হয় না। যদিও হরিদা শিল্পীসুলভ নেশার টানে কখনও পাগল, বাউল বা কাপালিক সাজেন, কখনও বা সাজেন বুড়ো কাবুলিওয়ালা, পুলিশ বা রূপসি বাইজি। পরিচিতরা তার এই বহুরূপীর সাজে মুগ্ধ হলে এক আনা বা দু-আনা বকশিশ দেয়। অপরিচিতরা বিরক্তির সঙ্গে হাতে তুলে দেয় দুটো একটা পয়সা। সপ্তাহের একটা দিনের এই সামান্য রোজগারে হরিদার সংসারের দুঃসহ অভাব ঘোচে না। সারা সপ্তাহের ক্ষুধানিবৃত্তির অন্নসংস্থান হয় না। তাই হরিদার উনানের হাঁড়িতে অনেক সময় শুধু ফেলার জল ফোটে, ভাত ফোটে না I

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title

৪. কমবেশি ১২৫ শব্দে নীচের প্রশ্নটির উত্তর দাও ।

 

‘ মনে হয় , ওর নিশ্বাসে বিষ , ওর দৃষ্টিতে আগুন , ওর অঙ্গ সঞ্চালনে ভূমিকম্প । ‘

 — উদ্ধৃতিটির আলোকে ঘসেটি বেগমের চরিত্রবৈশিষ্ট্য আলোচনা করো । 

উত্তর :  শচীন্দ্রনাথ সেনগুপ্তের লেখা ‘সিরাজদ্দৌলা’ নাট্যাংশে ঘসেটি বেগম চরিত্রটি এক স্বার্থান্বেষী, প্রতিহিংসাপরায়ণা, কূটনারী চরিত্র হিসেবে প্রতিভাত হয়েছে। নবাব আলিবর্দি খাঁর জ্যেষ্ঠা কন্যা মেহেরুন্নিসা ওরফে ঘসেটি বেগম ছিলেন সম্পর্কে সিরাজের মাসি। ঘসেটি চেয়েছিলেন আলিবর্দির অবর্তমানে বাংলার মসনদে বসবেন তার স্বামী। কিন্তু স্বামীর অকালমৃত্যুতে তার সে ইচ্ছাপূরণ হয়নি। অন্যদিকে তার পুত্রেরও মসনদপ্রাপ্তি অধরাই থেকে যায়। বোন আমিনার ছেলে সিরাজ মসনদে অধিষ্ঠিত হলে ঘসেটি বেগম ক্রুদ্ধ ও হিংস্র হয়ে ওঠে এবং সিরাজের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়।
প্রতিহিংসাপরায়ণা : ঘসেটি সিরাজের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ও অভিসম্পাত করেছে কিন্তু রাজনৈতিক কারণেই সিরাজ ঘসেটিকে গৃহবন্দি করে রেখেছিলেন। তাতে ঘসেটি আরও প্রতিহিংসাপরায়ণা হয়ে ওঠে। ঘসেটির মুখেই সেই প্রতিহিংসার কথা প্রকাশ পায়–“আমার রাজ্য নাই, তাই আমার কাছে রাজনীতিও নাই আছে শুধু প্রতিহিংসা।” এই প্রতিহিংসা তার পূর্ণ হবে সেইদিন যেদিন সিরাজের প্রাসাদ অপরে অধিকার করবে, তাঁকে সিংহাসন থেকে ঠেলে ফেলে শওকতজঙ্গের মতো কেউ হত্যা করবে। সিরাজ-বিরোধী ষড়যন্ত্রে সে ছিল প্রধান ব্যক্তি।
দেশদ্রোহী : ঘসেটি চেয়েছিল অপুত্রক আলিবর্দির অবর্তমানে সিংহাসনের অধিকার পাবে তার স্বামী, তা না হলে পালিত পুত্র শওকতজঙ্গের সম্ভাবনাও যখন সিরাজের কারণে অসম্ভব হয়, তখন নবাব-বিরোধী চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে, ইংরেজ তোষণে বাংলার পতন ডেকে আনতেও পিছপা হয়নি সে।
অমানবিক: শুধুমাত্র রাজ্যলোভে সন্তানতুল্য সিরাজের বিরুদ্ধে একের পর এক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে ঘসেটি। এই চরিত্রে নারীসুলভ সুকুমার মনোবৃত্তি লুপ্ত হয়ে কর্কশ নির্মমতা প্রকাশ পেয়েছে। ঘসেটির সঙ্গে থাকতে লুৎফ্ফার ভয় হয়। “মনে হয়, ওর নিশ্বাসে বিষ, ওর দৃষ্টিতে আগুন, ওর অঙ্গ সঞ্চালনে ভূমিকম্প!” নবাবের সকল চেষ্টার বিরুদ্ধে প্রধান বিদ্রোহিণী ঘসেটি বেগম।
স্বার্থান্বেষী : স্নেহময়ী নারীর কোনো স্বভাববৈশিষ্ট্য ঘসেটির মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায় না। তাই সে মানবী নয়, দানবী। সিরাজ তাকে মায়ের সম্মান দিয়েছিলেন কিন্তু ঘসেটির মধ্যে মায়ের স্নেহ ছিল না। ছিল তীব্র প্রতিহিংসার দহনজ্বালা। এক কুচক্রী স্বার্থান্বেষী, প্রতিহিংসাপরায়ণা কূট নারী হিসেবেই নাট্যাংশে ঘসেটির উপস্থিতি। ঘসেটির চরিত্রে যুগোপযোগিতা ও বাস্তবতার প্রমাণ এই যে, সিরাজের দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে সে নিজের প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার পথকে প্রশস্ত করেছিল।

 

৫. নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর নিজের ভাষায় লেখো ( কম – বেশি ১৫০ শব্দ ) : ৫ × ২ = ১০ 

 

৫.১ ‘ দস্যুরা কীভাবে আফ্রিকার ইতিহাসে চিরচিহ্ন এঁকে দিয়ে গিয়েছিল , তা ‘ আফ্রিকা ‘ কবিতা অনুসরণে আলোচনা করো ।

উত্তর : রবীন্দ্রনাথের আফ্রিকা কবিতায় উদৃত পংক্তিতে অপমানিত আফ্রিকাকে এ কথা বলা হয়েছে।

     রবীন্দ্রনাথ তাঁর ‘আফ্রিকা’ কবিতায় ‘অপমানিত ইতিহাস’ বলতে সাম্রাজ্যবাদী শাসকদের দ্বারা শােষিত আফ্রিকার বঞ্চনা ও লাঞ্ছনার ইতিহাসকে বুঝিয়েছেন। সৃষ্টির সূচনা থেকেই আফ্রিকা অরণ্যাবৃত। সে তথাকথিত উন্নত সভ্যতার আলাে থেকে বহুদূরে নির্বাসিত ছিল। সভ্য ইউরােপীয় সভ্যতার চোখেও আফ্রিকা উপেক্ষিত ছিল দীর্ঘদিন। তথাকথিত সভ্য’ পাশ্চাত্য সভ্যতা আফ্রিকার নিজস্ব জীবনধারা, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ইত্যাদিকে স্বীকার করত না। কিন্তু উনবিংশ শতকে ইউরােপীয়রা আফ্রিকায় ইত্যাদিকে স্বীকার করত না। কিন্তু উনবিংশ শতকে ইউরােপীয়রা আফ্রিকায় উপনিবেশ স্থাপনের সূচনার ফলে ক্রমে এই শতকের শেষে প্রায় পুরাে আফ্রিকাই ইউরােপের বিভিন্ন দেশের উপনিবেশে পরিণত হয়। আফ্রিকার সম্পদের সন্ধান পেতে এই শ্বেতাঙ্গ ঔপনিবেশিক তথা সাম্রাজ্যবাদীর দল শুরু করে মানবিক লাঞ্ছনা। আফ্রিকার কৃয়াঙ্গ সরল মানুষগুলিকে লােহার হাতকড়ি পরিয়ে মানুষ-ধরা’ এই বর্বরেরা তাদের পরিণত করে ক্রীতদাসে। তাদের বর্বরতা ও লােভ আফ্রিকার সূর্যহারা অরণ্যের চেয়েও কালাে। এইসব অত্যাচারিত মানুষদের রক্ত ও অশুতে কর্দমাক্ত হয় আফ্রিকার বনপথের ধুলাে। সাম্রাজ্যবাদী দস্যুদের কাটা-মারা জুতাের তলার কাদার পিণ্ড এভাবেই আফ্রিকার অপমানিত ইতিহাসে চিরচিহ্ন দিয়ে গিয়েছে।

৫.২ ‘ বাবুজি , এসব কথা বলার দুঃখ আছে । – বক্তা কে ? কোন কথার পরিপ্রেক্ষিতে সে একথা বলেছে ? 

উত্তর : শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় রচিত ‘পথের দাবী’ পাঠ্যাংশে উদ্ধৃত মন্তব্যটির বক্তা অপূর্বর সহকর্মী রামদাস তলওয়ারকর।   ‘পোলিটিকাল সাসপেক্ট’ সব্যসাচী মল্লিককে গ্রেফতার করতে গিয়ে ছদ্মবেশী গিরীশ মহাপাত্রকে নিয়ে মহা হুঁশিয়ার পুলিশের দলকে নির্বোধ ও আহাম্মক হতে দেখার কথা যখন অপূর্ব বর্ণনা করছিল তখন রামদাস জানতে চায় “তারা কি আপনাদের বাংলাদেশের পুলিশ?” উত্তরে অপূর্ব সায় দিয়ে বলে, তার লজ্জা হয় এই ভেবে যে, পুলিশের বড়োকর্তা তার আত্মীয় এবং পিতৃবন্ধু। তার বাবাই একদিন এঁর চাকরি করে দিয়েছিলেন।

     মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ার রামদাস মুখ ফসকে বলে ফেলে একদিন এর জন্যই হয়তো অপূর্বকে প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে। এই কথা বলে সে নিজের অপ্রতিভ হয়ে চুপ করে যায়। অপূর্ব তার অর্থ বুঝতে পেরে বলে, পুলিশ কর্তা তার শুভাকাঙ্ক্ষী বা আত্মীয় হলেও তিনি দেশের চাইতে আপন নন, বরং যাঁকে গেফতার করার জন্য তারা উদ্‌গ্রীব, সেই স্বাধীনতা সংগ্রামীকে সে অনেক বেশি আপনজন বলে মনে করে। এ কথার প্রসঙ্গে রামদাস আলোচ্য উক্তিটি করেছিল।

    ইংরেজ সরকার রাজবিদ্রোহীদের প্রতি কঠোর মনোভাব পোষণ করত। সেই কারণেই বিপ্লবী সব্যসাচী মল্লিককে ধরার জন্য সুদূর বাংলা মুলুক থেকে বর্মায় তারা পুলিশের বিশেষ দল পাঠিয়েছিল। এ ছাড়া ট্রেনযাত্রার সময় রাতভর পুলিশের নজরদারি ইত্যাদির মধ্যদিয়ে বোঝা যায়, ইংরেজ সরকার রাজ বিদ্রোহীদের দমন করতে কতটা তৎপর ছিল। বিপ্লবীদের গ্রেফতারের পর নানা ধরনের অত্যাচার ও দমননীতি প্রয়োগ করা হয় – এ কথা সেদিন সমস্ত ভারতীয়ের মতো রামদাসও জানত। তাই অপূর্বর মুখে দেশভক্তির সোচ্চার ঘোষণায় সে তাকে বন্ধু হিসেবে সতর্ক করে দিতে চেয়েছিল।

Page Title

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

৬. নীচের প্রশ্নটির উত্তর নিজের ভাষায় লেখো ( কম – বেশি ১৫০ শব্দ ) : 

‘ ক্ষিদ্দা , এবার আমরা কী খাব ? ’ – উদ্ধৃতিটির আলোকে কোনির যন্ত্রণাবিদ্ধ জীবনযাত্রার পরিচয় দাও । 

উত্তর : গঙ্গার ঘাট থেকে মাদ্রাসায় জাতীয় সাঁতার প্রতিযোগিতায় ভিকট্রি স্ট্যান্ড পর্যন্ত কোনির যে যাত্রা ক্ষিদ্দাই কোনির প্রথম ও প্রধান নির্দেশক ও অনুপ্রেরণা। অনুশীলনেরস্ট ব্যবস্থা ক্ষিতীশ সিঙ্ঘ কোনিকে সাঁতারে চ্যাম্পিয়ন করারনোর জন্য। কঠোর অনুশীলনের ব্যবস্থা করেছিলেন। এই অনুশীলনে সাঁতারের বিভিন্ন কৌশল ক্ষিতীশ কোনিকে শিখিয়েছিলেন। প্রতিদিন সকাল সাড়ে ছটা থেকে সাড়ে আটটা পর্যন্ত কোনির প্র্যাকটিস চলত। ছকে বাঁধা জীবন; ক্ষিতীশ কোনির জীবনযাত্রাকে একটা ছকে বেঁধে দিয়েছিলেন। কোনি কখন কী কী খাবে সেই ব্যাপারেও ক্ষিতীশ নিয়ম জারি করেছিলেন। ক্ষিতীশ কোনিকে প্রতদিন দুটো ডিম, দুটো কলা এবং দুটো টোস্ট খাওয়ার কথা ক্ষিতীশ বলেন। এগুলি কোনিকে খেতে দেওয়ার বদলে আরও এক ঘন্টা কোনির জলে থাকতে হবে বলে ক্ষিতীশ জানান। অমানুষিক পরিশ্রম লোভ দেখিয়ে অমানুষিক পরিশ্রম করিয়ে নেওয়া অন্যায় জেনেও যন্ত্রনা আর সময় দুটোকেই হারানোর জন্য ক্ষিতেশ এমনটা করেছিলেন। কোনি টিফিনের বদলে টাকা চাইলে ক্ষিতীশ আর কোনির মধ্যে বোঝাপড়া হয়। ক্ষিতীশ কোনিকে নানা উদাহরণ দিয়ে তাকে উজ্জীবিত করেন। সফলতা অর্জন ক্ষিতীশই দেয়ালে ৭০ লিখে টাঙিয়ে কোনির লক্ষ্যমাত্র ঠিক করে দেন। তার তত্ত্বাবধানে দিনের পর দিন কোনির এই কঠোর অনুশীলনই তাকে সাফল্যের শীর্ষে নিয়ে যায়।

৭. নির্দেশ অনুযায়ী উত্তর দাও : 

৭.১ অনুসর্গ হলো একপ্রকার 

( ক ) বিশেষ্য পদ 

( খ ) বিশেষণ পদ 

( ঘ ) অব্যয় পদ 

( গ ) সর্বনাম পদ 

উত্তর : (ঘ) অব্যয় পদ

৭.২ ‘ বিভক্তি কখনোই লুপ্ত হয় না 

( ক ) কর্মকারকে 

( খ ) করণ কারকে 

( ঘ ) কর্তৃকারকে 

( গ ) সম্বন্ধ পদে 

উত্তর : (ক) কর্মকারকে 

৭.৩ নির্দেশকের একটি উদাহরণ হলো 

( ক ) হইতে 

( খ ) কর্তৃক 

 (ঘ) গুলি 

( গ ) জন্য 

উত্তর : (ঘ) গুলি

 

৮. ব্যাসবাক্যসহ সমাস নির্ণয় করো : 

ভোজ্যবস্তু 

উত্তর : ভোজ্যবস্তু = ভোজ্যের বস্তু – সম্বন্ধ তৎপুরুষ সমাস

পোশাক – পরিচ্ছদ 

উত্তর : পোশাক-পরিচ্ছদ = পাশোক ও পরিচ্ছদ – দ্বন্দ্ব সমাস

সন্ধ্যাহিক 

উত্তর : সন্ধ্যাহ্নিক = সন্ধ্যায় পালনীয় আহ্নিক – মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস

 

৯. কমবেশি ১৫০ শব্দে প্রতিবেদন রচনা করো :

লর্ডসে রুদ্ধশ্বাস জয় ভারতীয় ক্রিকেট দলের l 

উত্তর : 

লর্ডসে রুদ্ধশ্বাস জয় পেল ভারতীয় ক্রিকেট দল

নিজস্ব সংবাদদাতা, ১৭ই আগস্ট, লর্ডস: লর্ডস টেস্টে ঐতিহাসিক জয় ভারতীয় দলের। রুদ্ধশ্বাস ম্যাচের পঞ্চম দিনে ব্যাটে বলে দাপট দেখাল ভারতীয় ক্রিকেটাররা। প্রথমে চাপের মুহূর্তে ৮৯ রানের পার্টনারশিপ গড়ে ভারতকে ২৯৮ রানে পৌছে দেয় মহম্মদ শামি ও জসপ্রীত বুমরা৷ অর্ধশতরান করেন মহম্মদ শামি। ইংল্যান্ডের ২৭ রানের লিড বাদ দিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ২৭২ রানের টার্গেট (দেয় টিম ইন্ডিয়া। রান তাড়া করতে নেমে প্রথম থেকেই লাগাতার ব্যবধানে উইকেট হারিয়ে চাপে বাড়তে থাকে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইনআপ। জো রুট ও জোস বাটলার কিছুটা লড়াই করলেও শেষ রক্ষা হয়নি। ১২০ রানে শেষ হয় ইংল্যান্ডের ইনিংস। ১৫১ রানে জয় পেল টিম ইন্ডিয়া।

১০. বঙ্গানুবাদ করো : 

Home is the first School where the Child learns his first lesson . He sees , hears and begins to learn at home . It is home that builds his Character . In a good home honest and healthy men are made .

উত্তর : বাড়ি হ’ল প্রথম স্কুল যেখানে শিশু তার প্রথম পাঠ শেখে। তিনি দেখেন, শুনেন এবং শুরু করেন বাড়িতে শিখুন। এটি বাড়িতে যা তার চরিত্রটি তৈরি করে। একটি ভাল বাড়িতে সৎ এবং স্বাস্থ্যবান পুরুষরা তৈরি হয়।

Page Title

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

SWG Academy

Class 10 Model Activity Task English Part 8 November

Class 10 Combined Model Activity Task
CLASS – X
ENGLISH

A. Read the following passage and answer the questions that follow: 

I was having tea at home on the evening of 30th January, 1948, when I was called to Birla house by an urgent telephone. Gandhiji had been shot on his way to a prayer meeting. I was numb with shock as I got into the car. 

At the Birla House, Gandhiji’s relatives and followers had gathered round his body. There was silence in the room as Gandhiji breathed his last. Words of Bapuji’s death had spread through Delhi like a flame fanned by wind. Sad groups of men and women had collected around Birla House. Out of every window one could see a brown blur of faces. They did not make a sound. There was an unnatural silence. It was as if time stood still for those few minutes. 

The people were too stunned to speak in the beginning. Later they clamoured wildly, shouting and crying. They jostled one another in a stampede to break into the house. They calmed a little when it was announced that they would be allowed to see Gandhiji before the funeral. 

Activity 1

Write the correct alternative to complete the following sentences: 1×5 = 5 

 

a) The narrator was having _______________. 

i) rice 

ii) bread 

iii) tea 

iv) fruits 

Answer: iii) tea 

b) The narrator received a telephone call in the _______________. 

i) morning 

ii) afternoon 

iii) night 

iv) evening 

Answer: iv) evening 

c) Gandhiji was shot on his way to a _______________. 

i) fair gathering 

ii) prayer meeting 

iii) political meeting 

iv) marketplace 

Answer: ii) prayer meeting 

d) The narrator went to Birla House by _______________. 

i) car 

ii) bus

iii) train 

iv) rickshaw 

Answer: i) car 

e) Time appeared to have stopped for a few _______________. 

i) hours 

ii) days 

iii) minutes 

iv) months 

Answer: iii) minutes 

Activity 2

Complete the following sentences with information from the text: 1 × 3= 3 

 

i) At the Birla House, Gandhiji’s _________________________. 

Answer: relatives and followers had gathered round his body.

ii) Words of Bapuji’s death had _________________________. 

Answer: spread through Delhi like a flame fanned by wind.

iii) The people were too stunned to ________________________. 

Answer: speak in the beginning.

 

Activity 3

Answer the following questions: 2 × 2 = 4 

 

i) What could one see out of every window? 

Answer: As sad groups of men and women had collected around Birla House, Out of every window one could see a brown blur of faces.

ii) When did the people become a little calm? 

Answer: The people become a little calm when it was announced that they would be allowed to see Gandhiji before the funeral. 

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title

B. Read the text given below and answer the questions that follow: 

The mountain and the squirrel 

Had a quarrel: 

And the former called the later ‘Little Prig.’ 

Bun replied, 

‘You are doubtless very big; 

But all sorts of things and weather 

Must be taken in together, 

To make up a year 

And a sphere. 

And I think it no disgrace 

To occupy my place. 

If I’m not so large as you 

You are not so small as I, 

And not half so spry. 

I’ll not deny you make 

A very pretty squirrel track; 

Talents differ; all is well and wisely put; 

If I cannot carry forests on my back 

Neither can you crack a nut.’ 

Activity 4 

Write the correct alternative to complete the following sentences: 1×4 = 4 

i) The quarrel was between the mountain and the _____________________ 

a) nut 

b) track 

c) weather 

d) squirrel 

Answer: d) squirrel

ii) The “later” is the ______________________ 

a) squirrel 

b) mountain 

c) quarrel 

d) year 

Answer: d) squirrel

iii) The squirrel is very ______________ 

a) spry 

b) big 

c) lazy 

d) tall 

Answer: a) spry 

iv) The mountain can carry on its back a _________________ 

a) sphere 

b) forest 

c) weather 

d) year 

Answer: b) forest

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title

Activity 5 

Complete the following table: 2×2 = 4 

Answer:
Sl. No. Statement  Reason
i The former called the later ‘Little Prig. The former called the later ‘Little Prig.’ to mock him as the squirrel is too small compared to the mountain.
ii Neither can the mountain crack a nut nor can the squirrel carry a forest. The mountain is not active and can not move. The squirrel is a very small creature and unable to carry forest.

Activity 6 

Split the following into two sentences: 1×4 = 4 

a) Having heard the news, she fainted. 

Answer: She heard the news, she fainted.

b) It was raining heavily, when she reached home. 

Answer: She reached home. It was raining heavily.

c) Ashoka, who was a great king, helped in the spread of Buddhism. 

Answer: Ashoka was a great king. He helped in the spread of Buddhism. 

d) Shabnam thought that she would win the first prize. 

Answer: She would win the first prize. Shabnam thought this.

Activity 7 

Replace the underlined words with suitable phrasal verbs from the given list. Change the form of verbs if necessary. Write the answers in the given space. One extra phrasal verb is given in the list: 2×3 = 6 

i) My older brother is in search of a job. 

Answer: My older brother is looking for a job.

ii) I cannot tolerate his audacity.

Answer: I cannot put up with his audacity.

iii) The Headmistress distributed books among the students. 

Answer: The Headmistress give away books among the students.

[List of Phrasal verbs : give away, turn down, look for, put up with] 

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Activity 8 

Write a dialogue within 100 words between two friends on your feelings about not going to school for a long time. 10 

Answer: 

Rohan: Hi Sanjay! How are you? 

Sanjay: I’m fine dear. What about you? 

Rohan: I’m fine too. What are you doing these days? I mean schools are closed due to coronavirus and there is a complete lockdown in schools. So how do you spend your time at home? 

Sanjay: Nothing special dear, life has become dull and boring. I’m thinking of joining online computer classes to spend time. 

Rohan: That’s a good idea. 

Sanjay: Yes. How is your life in lockdown? 

Rohan: Very tough. I’m also thinking about what can I do at this time? 

Sanjay: You can join grammar classes because you have some weaknesses in this matter. 

Rohan: That’s a good idea. I hadn’t thought this. Thank you so much. 

Sanjay: But this is a small part of a whole day. 

Rohan: Yes. It is not a substitute for school. 

Sanjay: Of course. In school, we can meet and play with our friends. 

Rohan: Corona detached us from each other. I just hope that things go back to normal as soon as possible.

Sanjay: I also hope the same.Ok bye. I’ll call you later. 

Rohan: Bye. Stay home, stay safe.

 

Activity 9 

Suppose you are the Cultural Secretary of the Students’ Club of your school. Write a notice in about 100 words informing the students about an Online Debate Competition for the students of Classes IX and X of your school. 10

Answer: 

Name of School ( your school name)
 
NOTICE
  Date:30/08/2021
 
Online Debate Competition
 
It is hereby notified for information and necessary action to all concerned that our school is going to organise an Online Debate Competition for the students of class IX and X of our school. Students who are interested in participating in this Competition can give their names to their respective class monitors by tomorrow. The competition will be organised on 5th of September via online meeting platforms.
 
Name ( Your Name )
Cultural Secretary
Page Title

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

SWG Academy

Class 10 Model Activity Task History Part 8 November

Class 10 Combined Model Activity Task

দশম শ্রেণি

ইতিহাস

১. ‘ক’ স্তম্ভের সাথে ‘খ’ স্তম্ভ মেলাও :
স্তম্ভ স্তম্ভ
১.১ ভাইসরয় (ক) রাধাকান্ত দেব
১.২ চৈত্র মেলা (খ) তারকনাথ পালিত
১.৩ জমিদার সভা (গ) লর্ড ক্যানিং
১.৪ বেঙ্গল টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট (ঘ) নবগােপাল মিত্র
উত্তর: 
স্তম্ভ স্তম্ভ
১.১ ভাইসরয় (গ) লর্ড ক্যানিং
১.২ চৈত্র মেলা (ঘ) নবগােপাল মিত্র
১.৩ জমিদার সভা (ক) রাধাকান্ত দেব
১.৪ বেঙ্গল টেকনিক্যাল ইন্সটিটিউট (খ) তারকনাথ পালিত
 

২. সত্য বা মিথ্যা নির্ণয় করাে :

 

২.১ ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দের বিদ্রোহের অভিঘাতে ভারতে ব্রিটিশ শাসনের সমাপ্তি ঘটেছিল। 

উত্তর: মিথ্যা

২.২ ভারতসভা গড়ে উঠেছিল দেশের জনগণকে বৃহত্তর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে একজোট করার জন্য। 

উত্তর: সত্য

২.৩ ১৮৫৭-র বিদ্রোহকে জাতীয়তাবাদীরা ‘ভারতের স্বাধীনতা যুদ্ধ’ বলে ব্যাখ্যা করেন।

উত্তর: সত্য

২.৪ ‘বর্তমান ভারত’ গ্রন্থে স্বামী বিবেকানন্দ শূদ্র জাগরণের কথা বলেছেন। 

উত্তর: সত্য

 

৩. শূন্যস্থান পূরণ করাে :

৩.১ ভারতে ছাপা প্রথম বাংলা বই হল __________ ।

উত্তর: এ গ্রামার অফ দা বেঙ্গল ল্যাঙ্গুয়েজ ।

৩.২ ফোর্ট উইলিয়ম কলেজ শ্রীরামপুর ব্যাপটিস্ট মিশন প্রতিষ্ঠিত হয় __________ খ্রিষ্টাব্দে। 

উত্তর:  ১৮০০ 

৩.৩ ঔপনিবেশিক ভারতে __________ প্রথম ভাইসরয় নিযুক্ত হন। 

উত্তর:  লর্ড ক্যানিং

৩.৪ ‘আনন্দমঠ’ উপন্যাসটি.__________ আন্দোলনের পটভূমিতে রচিত হয়।

উত্তর:  সন্ন্যাসী বিদ্রোহ 

৪. দুটি বা তিনটি বাক্যে নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :

৪.১ ইন্টারনেট ব্যবহারের দুটি সুবিধা লেখ। 

উত্তর: উত্তরঃ স্যাটেলাইট – নির্ভর যোগাযোগ ব্যবস্থা ‘ ইন্টারনেট ‘ মানব সভ্যতার দৈনন্দিন জীবনে অনেক কাজে লাগে । এর দুটি ব্যবহার হল – – 

i ) তথ্যের সহজলভ্যতা : ইন্টারনেটের মাধ্যমে ঘরে বসে থেকেই পুরো বিশ্বের অসংখ্য তথ্য নিমেষের মধ্যে জানা যায় | ইন্টারনেট থেকে খুব সহজেই বহু তথ্য সংগ্রহ করে ইতিহাস রচনা করা যায় |

ii ) সময়ের সাশ্রয় : বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে বই বা অন্যান্য উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ করা খুবই সময় সাপেক্ষ | কিন্তু ইন্টারনেটের সাহায্যে খুব অল্প সময়েই সেই সব তথ্য খুব সহজেই সংগ্রহ করা যায়|

৪.২ ডেভিড হেয়ার কেন স্মরণীয়? 

উত্তর: ডেভিড হেয়ার অনেক কারণেই স্মরণীয় হয়ে আছেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কারণ হল-

(i) ডেভিড হেয়ার ছিলেন ‘হিন্দু কলেজ’ প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম। 

(ii) তিনি ‘কলকাতা মেডিকেল কলেজ’ প্রতিষ্ঠা ও তার উন্নয়নেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। 

(iii) এছাড়া তিনি ‘ক্যালকাটা স্কুল বুক সোসাইটি’ ‘পটলডাঙা অ্যাকাডেমি’ (হেয়ার স্কুল) প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

৪.৩ বারাসাত বিদ্রোহ’ কী? 

উত্তর: বারাসাত বিদ্রোহ: বাংলার ওয়াহাবি আন্দোলনের প্রানপুরুষ তিতুমির ওরফে মির নিযার আলি বারাসাত মহকুমার জমিদার, নীলকর ও ইংরেজ বিরোধী যে বিদ্রোহের সূচনা করেন তা ‘বারাসাত বিদ্রোহ’ নামে পরিচিত। ১৮৩০ সাল থেকে ১৮৩১ সাল পর্যন্ত এই বিদ্রোহ হয়। শেষ পর্যন্ত ইংরেজ দমননীতির কারণে এই বিদ্রোহ ব্যর্থ হয়।

৪.৪ ‘গােরা’ উপন্যাসের মধ্য দিয়ে কোন দ্বন্দ্বের প্রতিফলন লক্ষ্য করা যায় ?

উত্তর : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত ‘গোরা’ উপন্যাসটি জাতীয়তাবাদী উপন্যাস।

দ্বন্দ্ব : রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার উপন্যাসে সমকালীন যুগজীবনের প্রতিচ্ছবি এঁকেছেন। এই উপন্যাসে ব্যক্তির সঙ্গে সমাজের, সমাজের সঙ্গে ধর্মের, ধর্মের সঙ্গে মানবসত্যের বিদ্বেষ ও দ্বন্দ্বের প্রতিফলন লক্ষ্য করা যায়।

৪.৫ গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর স্মরণীয় কেন? 

উত্তর: গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর স্মরণীয় কারন-

(i) চিত্রশিল্পী: জোড়াসাঁকো ঠাকুর পরিবারের সদস্য গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর বঙ্গীয় ঘরানার একজন চিত্রকর ও ব্যঙ্গচিত্রশিল্পী হিসাবে বিখ্যাত হয়ে আছেন। তাঁর ব্যঙ্গচিত্রগুলির মধ্যে অদ্ভুতলোক, বিরূপ বজ্র এবং নব হুল্লোড় প্রভৃতি বিশেষ উল্লেখযোগ্য।

(ii) আধুনিক চিত্রশিল্পের পথিকৃৎ: গগনেন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘আধুনিক চিত্রশিল্পের পথিকৃৎ’ হিসাবে আমাদের কাছে স্মরণীয় হয়ে আছে ।

৫. সাত বা আটটি বাক্যে উত্তর দাও :

৫.১ মহেন্দ্রলাল সরকার কেন স্মরনীয়?

উত্তর:  উনবিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে বাংলায় বিজ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন মহেন্দ্রলাল সরকার ৷ তিনি বাঙ্গালী জাতিকে অন্ধবিশ্বাসের পরিবর্তে যুক্তিবাদের পথে নিয়ে আসতে সচেষ্ট হন । ১৮৭৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘ দ্য ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কাল্টিভেশন অফ সায়েন্স ‘। তিনি এই প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা করে ভারতে বিজ্ঞান প্রসারের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আজও স্মরণীয় হয়ে আছেন।

৫.২ শিক্ষা বিস্তারে শ্রীরামপুর ব্যাপটিস্ট মিশনের ভূমিকার উল্লেখ কর। 

উত্তর: উনিশ শতকের সূচনাকাল থেকে বাংলায় দ্রুত ছাপাখানা শিল্পের শ্রীবৃদ্ধি ঘটে। এই সময়ে বাংলার একটি উল্লেখযোগ্য ছাপাখানা ছিল শ্রীরামপুর ব্যাপটিস্ট মিশন প্রেস। শ্রীরামপুর ত্রয়ী’ নামে খ্যাত তিন খ্রিস্টান মিশনারি (কেরি, মার্শম্যান, ওয়ার্ড) ১৮০০ খ্রিস্টাব্দে শ্রীরামপুরে এটি প্রতিষ্ঠা করেন। এটিই শ্রীরামপুর প্রেস নামে খ্যাত। এই প্রেস থেকে নানা বিষয়ে নানা ধরনের বই ও পত্রপত্রিকা ছাপানো হত, যেমন—নিউ টেস্টামেন্ট (বাইবেল) বাংলায় অনুবাদ করে এখান থেকে ছাপা হয়। এছাড়াও স্কুল ও কলেজের জন্য পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন ও প্রকাশনার বিশেষ ব্যবস্থা করা হয়। 1832 খ্রিস্টাব্দের মধ্যে এই প্রেস থেকে 40টি ভাষায় 2 লক্ষেরও বেশি বই ছাপানো হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল— রামরাম বসুর রাজা প্রতাপাদিত্য চরিত্র, মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালংকারের বত্রিশ সিংহাসন। কাশীরাম দাসের মহাভারত, কৃত্তিবাসের রামায়ণ ইত্যাদি। ব্যাপটিস্ট  মিশনের প্রচেষ্টায় বাংলায় ছাপাখানার যেমন শ্রীবৃদ্ধি ঘটে, তেমনি শিক্ষাদীক্ষা ও জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চার নবদিগন্তের সূচনা হয়। তাই বলা যায় বাংলার শিক্ষার ইতিহাসে শ্রীরামপুর ব্যাপটিস্ট মিশন প্রেস এক গৌরবময় অধ্যায়ের সূচনা করেন।

৫.৩ রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিক্ষাচিন্তায় কোন দিকটি শান্তিনিকেতন প্রতিষ্ঠায় সবচেয়ে বেশি ফুটে উঠেছিল? 

উত্তর: বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শান্তিনিকেতনে নিজের শিক্ষাচিন্তার ভিত্তিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। রবীন্দ্রনাথের পিতা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর রায়পুরের জমিদার ভুবনমোহন সিংহের কাছ থেকে 20 বিঘা জমি নিয়ে 1863 খ্রিস্টাব্দে শান্তিনিকেতন আশ্রম প্রতিষ্ঠা করেন।

 রবীন্দ্রনাথের শান্তিনিকেতন ভাবনা :-

i)রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার নিজস্ব শিক্ষাচিন্তার ভিত্তিতে শান্তিনিকেতনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। তিনি চেয়েছিলেন প্রকৃতির কাছাকাছি আদর্শ পরিবেশের মধ্যে শিশুদের বড়ো করে তুলতে হবে।

ii)রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রাচীন ভারতের আশ্রমিক শিক্ষার ভাবধারায় অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। তাই তিনি শিক্ষার্থীদের শান্তিনিকেতনে রেখে শিক্ষা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন।

রবীন্দ্রনাথের প্রকৃতি মানুষ ও শিক্ষা বিষয়ে হাতে কলমে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। রবীন্দ্রনাথ মনে করতেন যে শিক্ষা হবে মুক্ত প্রকৃতির কোলে মুক্ত আকাশের নিচে। চার দেওয়ালের মধ্যে আবদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে তিনিও খোপওয়ালা বড় বাক্স বলে অভিহিত করেছেন। তার উদ্দেশ্য ছিল প্রকৃতির কাছে থেকে আদর্শ প্রাকৃতিক পরিবেশে শিশু ও কিশোরদের বড় হতে সাহায্য করা। রবীন্দ্রনাথ মনে করতেন যে প্রকৃতির সংস্পর্শে শিশুর দেহ মন সুগঠিত হয়। শিশুদের পরম সত্তাকে নিবিড় ভাবে অনুধাবন করতে পারে।

৫.৪ ‘ভারতমাতা’ চিত্রটি কীভাবে ভারতের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রতীকে পরিণত হয়েছিল?

উত্তর : 

ভূমিকা : ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অঙ্কিত ‘বঙ্গমাতা’ চিত্রটিই স্বদেশি আন্দোলনের আবহে ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে ‘ভারতমাতা’ রূপে খ্যাতি লাভ করে। ‘ভারতমাতা’ চিত্রটি কীভাবে ভারতের জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের প্রতীকে পরিণত হয়েছিল তা নিম্নে আলোচনা করা হলো –

 (i) মায়ের ধারনা ও জাতীয়তাবাদ : ভারতমাতা চিত্রটি হল গৈরিক বসন পরিহিতা একাধারে এক দেবী ও মানবী। অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর এই চিত্রে মায়ের ধারনার সঙ্গে জাতীয়তাবাদকে যুক্ত করেন।

(ii) সমৃদ্ধ ভারতের প্রকাশ : ভারতমাতা চিত্রটির মাধ্যমে তুলে ধরা হয় ধনধান্যসমৃদ্ধ শস্যশ্যামলা ভারতবর্ষ স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং তার পাশাপাশি ভারত আধ্যাত্মশক্তি ও নারীশক্তিতেও বলীয়ান।

(iii) ব্রিটিশ বিরোধিতা : ব্রিটিশ বিরোধী অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুর ভারতমাতা চিত্রটিকে ব্রিটিশ বিরোধী একটি প্রতীক হিসাবে তুলে ধরেছিলেন ফলে সমকালীন ব্রিটিশ বিরোধী ভারতবাসীরা ভারতমাতা চিত্রটির মধ্যে জাতীয়তাবাদের উন্মেষ লক্ষ্য করতে পেরেছিলেন।

(iv) ভারতবর্ষের প্রতীক : ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সময় ‘ভারতমাতা’ চিত্রটিকে সবসময় আন্দোলনের সামনে রাখা হত ফলে খুব সহজেই ভারতমাতা চিত্রটি ভারতবর্ষের প্রতীক হয়ে উঠেছিল।

(v) ভারতীয় ঐতিহ্যের প্রকাশ : ভারতমাতা তাঁর চারটি হাতে ধরে আছেন ধানের গোছা, শুভ্রবস্ত্র, পুথি ও জপমালা এবং তাঁর পায়ের চারপাশে আছে সাদা পদ্মফুল। এগুলি সবই হল ভারতীয় ঐতিহ্যের ধারক বাহক ও প্রতীকস্বরূপ।

(vi) শান্তির প্রতীক : সশস্ত্র আন্দোলন সুস্থ জাতীয়তাবাদের বিকাশে বাধা সৃষ্টি করে তাই অবনীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আঁকা নিরস্ত্র ‘ভারতমাতা’ চিত্রটি শান্তির প্রতীকস্বরূপ।

উপসংহার : ভগিনী নিবেদিতা ‘ভারতমাতা’–এর ভূয়সী প্রশংসা করে বলেছেন যে, এই চিত্রটির মাধ্যমে বিমূর্ত জাতীয়তাবাদকে মূর্ত করে তোলা হয়েছে।

৫.৫ ‘বাংলার নবজাগরণ ছিল কলকাতাকেন্দ্রিক। – বিশ্লেষণ করাে। 

উত্তর : 

  • উনিশ শতকে বাংলার সমাজে ও মননে যে নবজাগরণ দেখা যায় তাকে অনেক ক্ষেত্রেই ইতালির রেনেসাঁসের সাথে তুলনা করা হয়ে থাকে।
  • বাংলার এই নবজাগরণের অনেকগুলি বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায় এবং সেই বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে অন্যতম হল কলকাতা কেন্দ্রিকতা।
  • বাংলার নবজাগরণের সাথে যে শিক্ষিত সমাজ যুক্ত ছিল তার বেশির ভাগের নিবাস ছিল কলকাতা। এছাড়াও সেই সময়কার ব্রিটিশ শাসনের রাজধানী ছিল কলকাতা, তাই কলকাতা অচিরেই এইসব কার্যকলাপের জন্য গুরুত্ব পেতে থাকে।
  • বিভিন্ন সামাজিক, বৈপ্লবিক ও সংস্কৃতে ক্রিয়া-কলাপ যা বাংলার নবজাগরণের বিশেষজ্ঞ ছিল তার একটি বড় অংশই ঘটেছিল কলকাতা শহরে।
  • বাংলার নবজাগরণ এর প্রথম দিকের এক গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব ছিলেন রাজা রামমোহন রায় এবং শেষের দিকের এক গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বলাই বাহুল্য যে এনারা দুজনেই কলকাতা শহরের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন।
  • উপরিউক্ত আলোচনা থেকে আমরা সহজেই এই সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারি যে বাংলার নবজাগরণের একটি কলকাতাকেন্দ্রিক মনোভাব ছিল।

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title
SWG Academy

Class 10 Model Activity Task Geography Part 8 November

Class 10 Combined Model Activity Task 

দশম শ্রেণি

পরিবেশ ও ভূগোল

১. বিকল্পগুলি থেকে ঠিক উত্তরটি নির্বাচন করে লেখাে :

১.১ অবরােহণ প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট একটি ভূমিরূপ হলাে –

ক) প্লাবনভূমি

খ) এস্কার

গ) গিরিখাত

ঘ) স্বাভাবিক বাঁধ 

উত্তর : গ) গিরিখাত

১.২ হিমবাহ ও পর্বতগাত্রের মধ্যে সৃষ্ট সঙ্কীর্ণ ফাঁক হলাে –

ক) ফিয়র্ড 

খ) বার্গম্বুন্ড

গ) করি

ঘ) এরিটি 

উত্তর : খ) বার্গম্বুন্ড

১.৩ ঠিক জোড়াটি নির্বাচন করাে —

ক) লাদাখ – অঙ্গরাজ্য 

খ) পুদুচেরী – কেন্দ্রশাসিত অঞ্জল 

গ) আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ – অঙ্গরাজ্য

ঘ) হরিয়ানা – কেন্দ্রশাসিত অঞ্জল 

উত্তর : খ) পুদুচেরী – কেন্দ্রশাসিত অঞ্জল

১.৪ ঠিক জোড়াটি নির্বাচন করাে —

ক) শৃঙ্খলিত শৈলশিরা – নদীর সঞ্জয়কাজ 

খ) এরিটি – হিমবাহের সঞয়কাজ 

গ) অপসারণ গর্ত – বায়ুর সঞয়কাজ

ঘ) বালিয়াড়ি – বায়ুর সঞ্জয়কাজ 

উত্তর : ঘ) বালিয়াড়ি – বায়ুর সঞ্জয়কাজ 

১.৫ ক্রান্তীয় চিরহরিৎ অরণ্যের উদ্ভিদের অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য হলাে –

ক) নির্দিষ্ট ঋতুতে এদের পাতা ঝরে যায় 

খ) পাতায় মােমের প্রলেপ থাকে 

গ) উদ্ভিদের ডালপালা একসাথে যুক্ত হয়ে চাঁদোয়া সৃষ্টি করে 

ঘ) এদের শ্বাসমূল থাকে

উত্তর : গ) উদ্ভিদের ডালপালা একসাথে যুক্ত হয়ে চাঁদোয়া সৃষ্টি করে 

১.৬ অতিবিরল জনঘনত্বযুক্ত একটি রাজ্য হলাে –

ক) পশ্চিমবঙ্গ

খ) গােয়া

গ) উত্তরপ্রদেশ

ঘ) সিকিম 

উত্তর : ঘ) সিকিম 

১.৭ আরােহণ প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট একটি ভূমিরূপ হলাে—

ক) গিরিখাত 

খ) রসে মতানে 

গ) বালিয়াড়ি

ঘ) গৌর 

উত্তর : গ) বালিয়াড়ি

১.৮ ঠিক জোড়াটি নির্বাচন করাে—

ক) উত্তর-পশ্চিম ভারতের প্রাচীন ভঙ্গিল পর্বত – নীলগিরি 

খ) দক্ষিণ ভারতের পূর্ববাহিনী নদী— নর্মদা 

গ) আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের চিরহরিৎ বৃক্ষ – মেহগনি 

ঘ) উত্তর-পূর্ব ভারত – কৃষ্ণু মৃত্তিকা

উত্তর : গ) আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের চিরহরিৎ বৃক্ষ – মেহগনি 

১.৯ ভারতের রূঢ় বলা হয়—

ক) জামসেদপুরকে 

খ) দুর্গাপুরকে 

গ) ভিলাইকে

ঘ) বােকারােকে 

উত্তর : খ) দুর্গাপুরকে 

২. শূন্যস্থান পূরণ করাে : 

২.১ বায়ুর___________প্রক্রিয়ায় বালি ও পলিকণা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে অপসারিত হয়। 

উত্তর : অপসারণ 

২.২ __________উপত্যকা পীরপাঞ্জাল ও উচ্চ হিমালয় পর্বতশ্রেণি দ্বারা বেষ্টিত।

উত্তর : কাশ্মীর

২.৩_____________মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে ভারতে শীতকাল প্রায় শুষ্ক প্রকৃতির হয়। 

উত্তর : উত্তর-পূর্ব

৩. বাক্যটি সত্য হলে ‘ঠিক’ এবং অসত্য হলে ‘ভুল’ লেখাে :

 

৩.১ নদীখাতে অবঘর্ষ প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট গর্তগুলি হলাে মন্থকূপ। 

উত্তর : ঠিক l

৩.২ ভারতের উপকূল অঞ্চলে দিনেরবেলা স্থলবায়ু প্রবাহিত হয়।

উত্তর : ভুল l

৩.৩ শুষ্ক ও উম্ন আবহাওয়া চা চাষের পক্ষে আদর্শ।

উত্তর : ভুল l

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title
৪. স্তম্ভ মেলাও :
স্তম্ভ স্তম্ভ
৪.১ বিশুদ্ধ কাঁচামাল (i) ক্রেভাস
৪.২ মালাবার উপকূল (ii) তুলাে
৪.৩ হিমবাহ (iii) কয়াল
উত্তর : 
স্তম্ভ স্তম্ভ
৪.১ বিশুদ্ধ কাঁচামাল (ii) তুলাে
৪.২ মালাবার উপকূল (iii) কয়াল
৪.৩ হিমবাহ (i) ক্রেভাস
   

৫. সংক্ষিপ্ত উত্তর দাও :

৫.১ পলল ব্যজনী কেন পর্বতের পাদদেশে সৃষ্টি হয়?

উত্তর : উচ্চ পার্বত্য অঞ্চল পার হয়ে নদী যখন পর্বতের পাদদেশীয় অঞ্চলে নেমে আসে তখন ভূমির ঢাল হঠাৎ কমে যাওয়ায় নদীর বহন ক্ষমতা ও স্রোতের বেগ দুই কমে যায় । ফলে উচ্চ পার্বত্য অঞ্চল থেকে বহন করে আনা পলি , বালি , কাঁকর , নুড়ি ইত্যাদি সঞ্চিত হয়ে পর্বতের পাদদেশে পলল ব্যজনী সৃষ্টি করে । যেমন : হিমালয়ের পাদদেশে এইরূপ পলল ব্যজনী দেখা যায় । 

৫.২ ‘ভারতের পশ্চিমবাহিনী নদীর মােহনায় বদ্বীপ গড়ে ওঠেনি’ – ভৌগােলিক কারণ ব্যাখ্যা করাে। 

উত্তর : ভারতের পশ্চিমবাহিনী নদী অর্থাৎ আরব সাগরে পতিত নর্মদা , তাপ্তি প্রভৃতি নদীর মোহনায় ব – দ্বীপ দেখা যায় না । কারণ :

1. স্বল্পদৈর্ঘ্য নদীপথ : নদীগুলির দৈর্ঘ্য কম হওয়ায় নদীতে পলির পরিমাণ কম থাকে ।

2. অল্প সংখ্যক উপনদী : পশ্চিমবাহিনী নদী গুলিতে উপনদীর সংখ্যা কম এবং সেগুলি ছোট ছোট । ফলে, নদী গুলিতে জল ও পলির পরিমাণ কম হয় ।

3. খরস্রোতা ও গভীর মহীসোপান : গ্রস্ত উপত্যকার মধ্য দিয়ে খাড়া ঢালে নদীগুলি প্রবাহিত হওয়ায় গতিবেগ খুব বেশি হয় । এছাড়া আরব সাগরের মহীসোপানের ঢাল অত্যন্ত বেশি হওয়ায় বিশেষত কাম্বে উপসাগরে নর্মদা ও তাপ্তি নদীর মোহনা অত্যন্ত গভীর হওয়ায় ক্ষয়জাত পদার্থ সমুদ্রের তলে তলিয়ে যায় । ফলে ব – দ্বীপ গঠিত হতে পারে না ।

৫.৩ ‘অক্ষাংশভেদে হিমরেখার উচ্চতা ভিন্ন হয়’ – ভৌগােলিক কারণ ব্যাখ্যা করাে।

উত্তর : হিমরেখা সর্বত্র এক উচ্চতায় অবস্থান করে না কারণ –

অক্ষাংশভেদে উন্নতার তারতম্য : উন্নতা বাড়লে হিমরেখার উচ্চতা বাড়ে এবং উষ্ণতা কমলে উচ্চতা কমে। নিম্ন অক্ষাংশে উষ্ণতা বেশি হওয়ায় হিমরেখা অধিক উচ্চতায় অবস্থান করে। ক্রমশ উচ্চ অক্ষাংশের দিকে উষ্ণতা হ্রাস পাওয়ায় হিমরেখার উচ্চতাও হ্রাস পেতে থাকে। যেমন-

অক্ষাংশহিমরেখার উচ্চতা
(i)          0°6000 মিটার
  (ii)         23½°4600 মিটার
(iii)          70°1200 মিটার
(iv)         90°100 মিটার

৫.৪ ভারতে জলবিভাজিকা উন্নয়নের দুটি উদ্দেশ্য লেখাে। 

উত্তর : ভারতে জলবিভাজিকা উন্নয়নের দুটি উদ্দেশ্য হলো – 

1. শুষ্ক ঋতুতে জলের সরবরাহ 

2. ভৌমজলের সঞ্চয় বৃদ্ধি 

Page Title

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

৬. নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :

৬.১ ধাপ চাষ, ফালি চাষ ও সমােন্নতি রেখা বরাবর চাষের মাধ্যমে কীভাবে মৃত্তিকা ক্ষয় প্রতিরােধ করা সম্ভব? 

উত্তর : 

1. ধাপ চাষ : পাহাড় বা পর্বতের ঢালে ধাপ কেটে চাষ করলে বৃষ্টির জলের গতি হ্রাস পেয়ে মৃত্তিকা ক্ষয় নিয়ন্ত্রিত হয় । 

2. ফালি চাষ : পার্বত্য ঢালের আড়াআড়িভাবে ফালি তৈরি করে চাষ করলে মাটি সংরক্ষণ করা যায় ।

3. সমোন্নতি রেখা চাষ : পার্বত্য অঞ্চলে সমোন্নতি রেখা বরাবর বাঁধ দিয়ে চাষ করলে প্রবাহিত জলধারা বাধাপ্রাপ্ত হয়ে মৃত্তিকা ক্ষয় হ্রাস পায় ।

৬.২ নিম্নলিখিত বিষয়গুলির ভিত্তিতে নদী উপত্যকা ও হিমবাহ উপত্যকার পার্থক্য নিরূপণ করাে —

ক) সৃষ্টির প্রক্রিয়া 

খ) উপত্যকার আকৃতি

গ) অবস্থান

উত্তর :  

বিষয়নদী উপত্যকাহিমবাহ উপত্যকা
সৃষ্টির প্রক্রিয়ানদীর ক্ষয়কাজের ফলে সৃষ্টি হয় ৷হিমবাহের ক্ষয়কাজের ফলে সৃষ্টি হয় ।
উপত্যকার আকৃতিইংরাজী অক্ষর V অথবা । এর মতো হয় ।ইংরাজী অক্ষর U এর মতো হয় ৷
অবস্থানতুষারে ঢাকা অঞ্চল ছাড়া পৃথিবীর প্রায় সর্বত্র নদী উপত্যকা বিস্তার লাভ করে ৷সুউচ্চ পার্বত্য অঞ্চল ও মেরু অঞ্চলের মধ্যেই কেবলমাত্র হিমবাহ উপত্যকা বিস্তৃত ৷

 

৬.৩ হিমালয় পর্বতমালা কীভাবে ভারতীয় জলবায়ুকে নিয়ন্ত্রণ করে? 

উত্তর : 

উত্তর :  হিমালয় পর্বতের অবস্থান ভারতের জলবায়ুকে যথেষ্ট প্রভাবিত করে।
1.শৈলোৎক্ষেপ বৃষ্টিপাত : ভারতের উত্তর সীমান্ত বরাবর অবস্থিত হিমালয় পর্বতের দক্ষিণ ঢালে দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু বাধাপ্রাপ্ত হয়, ফলে সমগ্র উত্তর ভারত জুড়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ শৈলোৎক্ষেপ বৃষ্টিপাত ঘটে। এছাড়া এই বায়ুকে ক্রমশ সমগ্র ভারতে ছড়িয়ে পড়তে সাহায্য করে।

2. জলবায়ুর প্রকৃতি নির্ধারণ : উপক্রান্তীয় অঞ্চলে অবস্থিত হওয়া সত্ত্বেও অধিক উচ্চতার কারণে হিমালয়ের জলবায়ু উষ্ম প্রকৃতির না হয়ে শীতল নাতিশীতোয় প্রকৃতির হয়।

3.শৈত্যপ্রবাহ থেকে রক্ষা : হিমালয় পর্বতের অবস্থান হেতু মধ্য এশিয়া ও উত্তর-পূর্ব এশিয়া থেকে আগত অতি শীতল বায়ু ভারতে প্রবেশ করতে পারে না। তাই তীব্র শীতের প্রকোপ থেকে ভারত রক্ষা পায়।

4. তুষারপাত : অধিক উচ্চতার কারণে হিমালয় পার্বত্য অঞ্চলে প্রধানত শীতকালে তুষারপাত ঘটে।

5. মৌসুমি বায়ুর নিয়ন্ত্রণ : হিমালয় পর্বত পরোক্ষভাবে মৌসুমি বায়ুর উৎপত্তি, গতিপথ এবং গতিবেগ নিয়ন্ত্রণ করে।

৭. নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :

৭.১ হিমবাহের সঞ্জয় কার্যের ফলে গঠিত বিভিন্ন প্রকার গ্রাবরেখার সচিত্র বর্ণনা দাও।

উত্তর : উচ্চ পার্বত্য অঞ্চল থেকে বিচ্ছিন্ন ও ক্ষয়প্রাপ্ত নানা আয়তনের তীক্ষ্ণ শিলাখণ্ড হিমবাহের সঙ্গে বাহিত হয়ে স্তূপাকারে উপত্যকার বিভিন্ন অংশে সঞ্চিত হয় । এই শিলাস্তূপকে গ্রাবরেখা বলে । অবস্থানের প্রকৃতি অনুযায়ী গ্রাবরেখা বিভিন্ন ধরনের হয় । যথা : 

1. পার্শ্ব গ্রাবরেখা : হিমবাহের উভয় পার্শ্বে সঞ্চিত গ্রাবরেখা ।

2. মধ্য গ্রাবরেখা : পাশাপাশি দুটি হিমবাহের মধ্যবর্তী স্থানে সঞ্চিত গ্রাবরেখা ।

3. প্রান্ত গ্রাবরেখা : হিমবাহের সামনে বা শেষ প্রান্তে সঞ্চিত গ্রাবরেখা 

4. ভূমি গ্রাবরেখা : হিমবাহের নীচে অর্থাৎ ভূমিতে ক্ষয়জাত বা বাহিত পদার্থ সঞ্চিত হয়ে যে গ্রাব – রেখা তৈরি হয় তাকে ভূমি গ্রাবরেখা বলে। উত্তর-পশ্চিম ইউরােপ,পােল্যান্ড, ফিনল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেনের দক্ষিণাংশে এবং কানাডায় যথেষ্ট সংখ্যক গ্রাবরেখা দেখতে পাওয়া যায়।

class 10 model activity task part 8 12

৭.২ ভারতের কোন অঞ্চলে অধিকাংশ কফি উৎপাদন করা হয়? এই বাগিচা ফসল চাষের অনুকুল প্রাকৃতিক পরিবেশের বর্ণনা দাও। 

উত্তর :ভারতের অধিকাংশ কফি দক্ষিণ ভারতের তিনটি রাজ্যে উৎপাদন করা হয় । যথা : 

1. কর্ণাটক : ভারতের মধ্যে কফি উৎপাদনে প্রথম স্থান অধিকার করে । ভারতের মোট উৎপাদনের 72 % কফি উৎপাদিত হয় । এই রাজ্যের চিকমাগালুর , হাসান , কোদাগু , কুর্গ , মাইসোর , শিমোগা প্রভৃতি জেলায় কফি উৎপাদিত হয় । 

2. কেরল : ভারতের মধ্যে কফি উৎপাদনে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে । ভারতের মোট উৎপাদনের 20 % কফি উৎপাদিত হয় । ওয়ানড় , পালাক্কাড় , ইদুক্কি প্রভৃতি জেলায় কফি উৎপাদিত হয় । 

3. তামিলনাড়ু : ভারতের মধ্যে কফি উৎপাদনে তৃতীয় স্থান অধিকার করে । ভারতের মোট উৎপাদনের 6 % কফি উৎপাদিত হয় । নীলগিরি , সালেম , কোয়েম্বাটোর , মাদুরাই , তিরুনেলভেলি প্রভৃতি জেলায় কফি উৎপাদিত হয় ।

কফি চাষের অনুকূল প্রাকৃতিক পরিবেশ :

1. উষ্ণতা : 20°C – 30°C উষ্ণতা কফি চাষের জন্য আদর্শ । 

2. বৃষ্টিপাত : 150-250 সেমি বৃষ্টিপাত কফি চাষের জন্য প্রয়োজন । 

3. আর্দ্রতা :আর্দ্রতা কফি গাছের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে ।

4. মৃত্তিকা : লৌহ – পটাশযুক্ত উর্বর লাল দোয়াশ  মাটি ও মৃদু অম্লধর্মী হিউমাস মাটি কফি চাষের পক্ষে উপযোগী । 

5. জমির প্রকৃতি : জলনিকাশি ব্যবস্থাযুক্ত পাহাড়ী ঢালু জমি । 

6. ছায়াপ্রদানকারী বৃক্ষ :প্রত্যক্ষ সূর্যকিরণ কফি চাষের পক্ষে ক্ষতিকারক । তাই কফি বাগিচাগুলোতে ছায়াদানকারী বৃক্ষ যেমন : কলা গাছ লাগানো হয় । 

৭.৩ ভারতীয় জনজীবনে নগরায়ণের নেতিবাচক প্রভাবগুলি উল্লেখ করাে।

উত্তর :

ভূমিকা :- যদিও ভারতে সমগ্র জনসংখ্যার মাত্র 27.78% শহর বা সন্নিহিত অঞ্চলে বসবাস করে থাকে, বর্তমানে আমাদের দেশ নগরায়ণ নামের এক জটিল সমস্যার সম্মুখীন। যদিও এটা অস্বীকার করা যায় না যে নগরায়ণকে হাতিয়ার করেই বিগত কয়েক দশকে আর্থিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নতি ঘটেছে নগরায়ণ আমাদের কিছু আর্থ-সামাজিক সমস্যারও সম্মুখীন করে তুলেছে। বর্তমানে ভারতে শহরে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা পৃথিবীর মধ্যে সর্বাধিক এবং এই বিপুল পরিমাণ জনসংখ্যা শহরের শৌচাগার, পরিবহণ, জল, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং বাসযোগ্য গৃহের ওপর বিপুলচাপ সৃষ্টি করছে।

অপরিকল্পিত নগরায়ণ : সরকারি নীতির শৈথিল্যের কারণে শহুরে জনসংখ্যা ও তার সঙ্গে বাসস্থানের গুণমানের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকছে না। অপরিকল্পিত নগরায়ণের কারণে স্থানীয় অর্থনৈতিক ভিত্তি অকল্পনীয় চাহিদার কারণে দুর্বল হয়ে পড়ছে। নিকটবর্তী গ্রামগুলি থেকে দৈনন্দিন ভিত্তিতে অভিবাসনের দরুন শহরগুলির প্রকৃত আয়তন আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে চলেছে। বর্তমানে ধনবান ব্যক্তিরা শহরের কেন্দ্রস্থল অপেক্ষা শহরের প্রান্তসীমায় পাড়ি দিচ্ছেন। এভাবেই দিল্লি, মুম্বাই, চেন্নাই, কলকাতা প্রভৃতি শহরের আয়তন আজ অকল্পনীয়ভাবে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়েছে অনেক দখলীকৃত কৃষিজমির বিনিময়ে।

মানুষের শহরমুখী প্রবণতা : জীবন ও জীবিকার কারণে এবং উন্নত জীবনযাত্রার আকর্ষণে শহরমুখী জনস্রোত বেড়েই চলেছে; যার ফলে অনেক সংখ্যক মানুষকে খুব কম জায়গার মধ্যে থাকতে হচ্ছে। যেমন— 2001 সালের জনগণনা অনুসারে দিল্লির জনঘনত্ব 9340 জন প্রতি বর্গকিমি যা ভারতে সর্বোচ্চ। যদিও এটি দিল্লির গড় জনঘনত্ব, যার অর্থ দিল্লির কেন্দ্রস্থলের জনঘনত্ব আরো বেশি। জনসংখ্যার ঘনত্ব ভারতের প্রধান চারটি শহরে আজ এতই বেশি যে শহরগুলির চারদিকে একাধিক নগর নির্মাণের মাধ্যমেও জনঘনত্ব কমানোর চেষ্টা সফল হচ্ছে না।

পরিকাঠামোগত অভাব : (1)বসতি : অত্যধিক জনঘনত্ব শহরাঞ্চলে বসতির তীব্র অভাব তৈরি করেছে। বর্তমান জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে গেলে প্রতি বছর 25 লক্ষ নতুন গৃহের প্রয়োজন অথচ বাস্তবে যার 15%-এর চেয়েও কম নির্মিত হয়। বসতি নির্মাণকারী দ্রব্যসমূহের অভাব এবং আর্থিক সমস্যাই এর মূল কারণ। এ ছাড়াও দূরবর্তী স্থানগুলিতে যোগাযোগ ব্যবস্থাও অপ্রতুল, যার দ্বারা সেখানে গৃহনির্মাণ সম্ভব হতে পারে। (2)পরিবহণ : শহরগুলির আয়তন বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে এমনকি শহরের মধ্যে বসবাসকারী ব্যক্তিকেও জীবিকার প্রয়োজনে শহরের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে যেতে হয় এবং শহরের বাইরে থেকে যাঁরা আসেন তারা অপ্রতুল জনপরিবহণের সাহায্য নিতে বাধ্য হন। 2004 সালের সমীক্ষা অনুসারে, যানবাহনের সংখ্যা 2021 সালে প্রায় দ্বিগুণ হবে, কিন্তু রাস্তার দৈর্ঘ্য অনুরূপ বাড়বে না। (3)স্বাস্থ্য : অপরিকল্পিত নগরায়ণের ফলে বৃহৎ শহরগুলিতে নির্মিত গৃহগুলির গুণমান অধিকাংশই নিম্নমানের হওয়ায় তা স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করছে। জনসংখ্যার বিপুল চাপ সরকারি চিকিৎসালয়গুলির পক্ষে বহন করা অসম্ভব হয়ে পড়ায় মানুষকে অত্যধিক ব্যয়ের মাধ্যমে বেসরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রের দ্বারস্থ হতে হচ্ছে বা চিকিৎসা করানোই সম্ভব হচ্ছে না। (4) শিক্ষা : শহরকেন্দ্রের সন্নিহিত অঞ্চলের গুটিকয়েক শিক্ষাকেন্দ্রের ওপর বিপুল পরিমাণ শিক্ষার্থীর চাপ, শিক্ষায় দুর্নীতি, আকাশছোঁয়া শিক্ষা-খরচ প্রভৃতির কারণে শহর সংলগ্ন বিদ্যালয় ও নত্ব উচ্চবিদ্যালয়গুলিতে আজকাল প্রায়ই অচলাবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে।

 

Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

Page Title
Page Title
ALL Class ALL Model Activities Click Here
 Class 6 Model Activity Task Part 8 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
 Class 6 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
 Class 7 Model Activity Task Part 8 (Bengali, English, History, Geography )Click Here

 Class 7 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)

Click Here
 Class 8 Model Activity Task Part 8 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
 Class 8 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
Class 9 Model Activity Task Part 8 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
Class 9 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
Class 10 Model Activity Task Part 8 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
Class 10 Model Activity Task Part 8 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here

2 thoughts on “Class 10 Model Activity Task Part 8 November New 2021 | Combined Model Activity Task | দশম শ্রেণী মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক | Bengali, English, History, Geography”

  1. SNEHASIS DATTA CHAUDHURI

    তবে অন্যান্য বিষয়গুলি খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে , ছাত্র ও শিক্ষকরা যথার্থই উপকৃত হলেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.