StudyWithGenius

Class 7 Model Activity Task Part 7 October New 2021 | সপ্তম শ্রেণী মডেল অ্যাক্টিভিটি | Bengali, English, History, Geography

Class 7 All Subject Model Activity Task Part 7

class 7 model activity task part 7 answer, class 7 model activity task part 7 bengali, class 7 model activity task part 7 chemistry, class 7 model activity task part 7 download, class 7 model activity task part 7 english, class 7 model activity task part 7 exercise, class 7 model activity task part 7 full, class 7 model activity task part 7 geography, class 7 model activity task part 7 mathematics, class 7 model activity task part 7 maths class 7 model activity task part 7 notes, class 7 model activity task part 7 of science, class 7 model activity task part 7 online, class 7 model activity task part 7 question answer, class 7 model activity task part 7 solution, class 7 model activity task part 7 wbbse, class 7 model activity task part 7 west bengal board, class 7 model activity task part 7 with answers,class 7 model activity task part 7 sastho o sarirsikhkha

WBBSE West Bengal Board of Secondary Education Class 7 All Subject Part 7 Model Activity Task Solution in Bengali . New Model Activity Task of Class 7 October Answers PDF or Text based answers.

Class 7 Model Activity Task Part 7
SWG Academy

Class 7 Model Activity Task Bengali Part 7 October

মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক

বাংলা (প্রথম ভাষা)

সপ্তম শ্রেণি

১. নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও

১.১ ‘তার চলবার ভঙ্গিটি বড়ো মজার।’

     – কার চলবার ভঙ্গিটি বড়ো মজার? তার চলার ভঙ্গি প্রসঙ্গে প্রাবন্ধিক কী জানিয়েছেন?

উত্তর: প্রশ্নে উদ্ধৃত অংশটি শিবতোষ মুখোপাধ্যায় রচিত ‘কার দৌড় কদ্দূর’ প্রবন্দ থেকে নেওয়া হয়েছে।

এই প্রবন্ধে অ্যামিবার চলার ভঙ্গির কথা বলা হয়েছে।

এককোশী অ্যামিবা তার দেহের খানিক প্রোটোপ্লাজম সামনে গড়িয়ে দেয়, ফলে সৃষ্টি হয় ক্ষণপদ। আর এই ক্ষণপদের সাহায্যেই প্রোটোপ্লাজমের দিকে সে এগিয়ে যায়, কয়েক মিনিটে তার কয়েক  মিলিমিটার পথ মন্থর গতিতে চলাফেরার ভঙ্গিটিকে লেখক মজার বলে উল্লেখ করেছেন।

১.২ ‘কার নাম দুন্দুভি? কাকে বলে অরণি?’ – প্রশ্ন দুটি তোমাকে করা হলে তুমি কী উত্তর দেবে?

উত্তর: দুন্দুভি শব্দের অর্থ হলো ‘ঢাক’ এবং অরণি শব্দের অর্থ হলো ‘চিত্রক গাছ’ বা চকমকি পাথর ।

১.৩  ‘ওই পাহাড়টার নাম জানো?’

– প্রশ্নকর্তার পরিচয় দাও। তিনি কাকে এই প্রশ্ন করেছেন? শ্রোতা তার উত্তরে কী জানিয়েছেন?

উত্তর: সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় বিরচিত ‘মেঘ-চোর’ গল্পে বিজ্ঞানী পুরন্দর চৌধুরি অসীমাকে এই প্রশ্ন করেছিলেন।

বিদেশবিভুঁই-এ এসে হঠাৎ করেই রক্তের সম্পর্কের নিকটাত্মীয়াকে পেয়ে বিজ্ঞানী চৌধুরি খুব খুশি হয়েছিলেন। এরপর নিজের রকেটে অসীমাকে সঙ্গে নিয়ে তাকে প্রকৃতি তথা আবহাওয়ার নানা রহস্য সম্পর্কে অবহিত করতে থাকেন। ঘুরতে ঘুরতে তারা একসময় আলাস্কার আকাশে আসেন। আলাস্কায় তখন এস্কিমোদের ইগলুর বদলে বড়ো বড়ো এয়ারকন্ডিশনড় বাড়ি উঠেছে। নীচের দিকে একটি সোনালি রঙের পাহাড় অসীমার দৃষ্টি আকর্ষণ করলে বিজ্ঞানী পাহাড়টির নাম জানতে চান। ইতিহাসের ছাত্রী হলেও ভুগোলটাও অসীমা ভালো জানত। তাই অকপটে সে জবাব দেয় পাহাড়টি হল মাউন্ট চেম্বারলিন আর তার পাশের কুয়াশায় ঢাকা হ্রদটি হল শ্রেভার লেক।

১.৪ পুলিনবিহারী সেন ‘জনগণমন অধিনায়ক জয় হে’ গানটি রচনার উপলক্ষ জানতে চেয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে চিঠি লিখলে তিনি কী উত্তর দিয়েছিলেন?

উত্তর: ‘বিশ্বভারতী’ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশিষ্ট ছাত্র পুলিনবিহারী সেন বহু প্রবন্ধগ্রন্থের রচয়িতা। রবীন্দ্রনাথের রচনাব্যাখ্যায় তাঁর প্রবন্ধগুলি আজও আদর্শস্থানীয়। পুলিনবিহারী বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের অত্যন্ত প্রিয় পাত্র ছিলেন।রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে তাঁর নানা বিষয়ে পত্রালাপ চলত। সেই প্রসঙ্গেই তিনি কবির কাছে  ‘জনগণমন অধিনায়ক জয় হে’ গানটি রচনার উপলক্ষ্য জানতে চাইলে রবীন্দ্রনাথ তাঁকে চিঠিতে লিখে জানান যে, কবির কোনো এক রাজসরকারে প্রতিষ্ঠাবান বন্ধু ভারতসম্রাটের আগমন উপলক্ষ্যে তাঁকে গান রচনা করতে অনুরোধ করলে তিনি গানটি রচনা করেন।

১.৫  ‘ভেসে যায় নামগুলি’ – কোন্ নামগুলি, কোথায়, কেন ভেসে যায়?

উত্তর: কামিনী রায় রচিত ‘স্মৃতিচিহ্ন’ কবিতায় যেসব ক্ষমতালোভী , সাম্রাজ্যবাদীরা বিশাল স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করে নিজেদের নাম অক্ষয় রাখতে চাই তাদের নামের কথা এখানে বলা হয়েছে । 

আলোচ্য উদ্ধৃতিটির মধ্য দিয়ে কবি বোঝাতে চেয়েছেন যে, সাম্রাজ্যের ক্ষমতালোভী শাসকের দল কেবলই নিজেদের ক্ষমতার দম্ভে বিশাল বিশাল প্রাসাদ বা অট্টালিকা নির্মাণ করেছে, তাতে মানুষের কোনোই উপকার হয়নি। তাই মানুষের মনে তাদের কোনোই জায়গা হয়নি। একসময় কালের নিয়মে সেই প্রাসাদ বা অট্টালিকাগুলি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে এবং তাদের নাম কালের স্রোতে ভেসে গিয়েছে।

২. নির্দেশ অনুসারে নীচের ব্যাকরণগত প্রশ্নগুলির উত্তর দাও :

২.১ বাক্যে প্রয়োগ করো :

২.১.১ ঝিরঝির :- সারারাত ধরে ঝিরঝির করে বৃষ্টি পড়ে চলেছে।

২.১.২ টাপুর-টুপুর :-  বৃষ্টি পড়ে টাপুরটুপুর

২.১.৩ খিলখিল :- শিশুটি খিল খিল করে উঠলো ।

২.২ নীচের বাক্যগুলিতে শব্দদ্বৈতগুলির প্রয়োগ বৈশিষ্ট্য দেখাও :

২.২.১ ঠেলাঠেলির মধ্যে না যাওয়াই ভালো।

উত্তর:  আলোচ্য বাক্যে ‘ঠেলাঠেলি’ একটি শব্দদ্বৈত এবং এর মধ্য দিয়ে ‘অস্বাচ্ছন্দ্য অর্থ’ (ভিড়ের মধ্যে) প্রকাশিত।

২.২.২ দেখতে দেখতে সন্ধ্যা নেমে এল।

উত্তর: প্রদত্ত বাক্যে ‘দেখতে দেখতে’ এই শব্দদ্বৈতটি দ্বিরুক্ত শব্দের শব্দদ্বৈতের অন্তর্গত এবং এর মধ্য দিয়ে ‘সমকালীনতা’ ভাবটি প্রকাশিত।

Class 7 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

SWG Academy

Class 7 Model Activity Task English Part 7 October

MODEL ACTIVITY TASK
CLASS – VII
ENGLISH

1. Read the following verse and answer the questions that follow:

The people were starving. They came to Ceres and implored her to bring back plenty, and save their lives. Ceres lifted her face, weary with ceaseless wandering, and said, “I cannot take care of the earth until I get back my lost daughter.”

So the people thought of praying to Jupiter who was the king of the gods. And to Jupiter they sent their prayer to bring Proserpine back to her mother. They were sadly in need of Ceres’s help.

A. Complete the following sentences:

(i) The people were starving so ____________________ .

Ans: they came to Ceres and implored her to bring back plenty, and save their lives.

(ii) Ceres’s face was weary because _______________________ .

Ans: she lost her daughter.

(iii) The people prayed to Jupiter because ___________________ .

Ans: they were sadly in need of Ceres’s help.

B. Answer the following questions:

(i) Who was Jupiter?

Ans: Jupiter was the king of the gods.

(ii) What the people implore Ceres?

Ans: The people implore Ceres to bring back plenty, and save their lives. 

(iii) What did Ceres tell the people?

Ans: Ceres told the people that she could not take care of the earthuntil she will got back her daughter

2. Do as directed:

(i) Don’t eat the rotten apples. (Identify the participial adjective)

Ans: rotten.

(ii) I am sorry, I ________ help you. (Fill in the blanks with the negative form of the modal)

Ans: can not.

(iii) His application was rejected. (Replace the underlined word with its antonym)

Ans: His application was accepted.

(iv) Bumrah bowls ________ (fast) than Anderson. (Use the correct degree of adjective)

Ans: faster.

3. Write a paragraph (in about 70 words) on ‘The subject you like most’ using the following hints:

Hints: your favourite subject-reason-time you give in reading the subject-type of books you consult-persons who helped to create interest

The Subject I Like Most 

As a student we have to learn many subjects, but amongst them there are one subject which is always everyone’s favourite. My favourite subject since childhood was English. My father used to teach me English at home. I could always score good marks in English. I really loved reading English lessons, stories etc. solving grammar was my favourite part. I always loved the subject & connect it well. I could understand it well which helped me to learn the subject effortlessly. I get to learn many new words from each chapter in my English book.I used to practise at home all the time, which helped me enhance my reading and communication skills. Since childhood I have enjoyed reading English books which polished my interest towards the subject.

Class 7 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

SWG Academy

Class 7 Model Activity Task History Part 7 October

মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক

সপ্তম শ্রেণি

ইতিহাস

‘ক’ স্তম্ভের সঙ্গে ‘খ’ স্তম্ভ মেলাও :

ক-স্তম্ভ

খ’ স্তম্ভ

১.১ পানিপথের প্রথম যুদ্ধ

(ক) ১৫২৯ খ্রি:

১.২ খানুয়ার যুদ্ধ

(খ) ১৫২৬ খ্রি:

১.৩ ঘর্ঘরার যুদ্ধ

(গ) ১৫৩৯ খ্রি:

১.৪ চৌসার যুদ্ধ

(ঘ) ১৫২৭ খ্রি:

উত্তর :

ক-স্তম্ভ

খ’ স্তম্ভ

১.১ পানিপথের প্রথম যুদ্ধ

(খ) ১৫২৬ খ্রি:

১.২ খানুয়ার যুদ্ধ

(ঘ) ১৫২৭ খ্রি:

১.৩ ঘর্ঘরার যুদ্ধ

(ক) ১৫২৯ খ্রি:

১.৪ চৌসার যুদ্ধ

(গ) ১৫৩৯ খ্রি:

২. শূন্যস্থান পূরণ করো:

২.১ আদিল শাহের প্রধানমন্ত্রী হিমু ________ দখল করেছিলেন।

উত্তর : দিল্লি শহর 

২.২ আকবর ________ যুদ্ধে আফগানদের হারিয়ে দেন।

উত্তর : পানিপথের দ্বিতীয় যুদ্ধে 

২.৩ মুঘলরা কান্দাহারের উপর নিয়ন্ত্রণ হারায় _______ আমলে।

উত্তর : শাহ জাহানের 

২.৪ মুঘলরা বিজাপুর ও গোলকোন্ডা দখল করে _______ রাজত্বকালে।

উত্তর : ঔরঙ্গজেবের 

৩. দুটি বা তিনটি বাক্যে উত্তর দাও :

৩.১ ‘জাবতি’ কী?

উত্তর :  ভারতবর্ষ ছিল কৃষিনির্ভর দেশ। তাই ভালভাবে শাসন পরিচালনা করতে হলে ভূমি-রাজস্ব ব্যবস্থা উপর নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন। আলাউদ্দিন খলজির আমল থেকেই রাজস্বের পরিমাণ নির্ধারণ করার জন্য জমি জরিপ করার বা মাপার ব্যবস্থা ছিল। পরে শেরশাহর সময়ও জমি মাপা হয়। আকবর নতুন করে জমি জরিপ করান।জমি জরিপের ভিত্তিতে রাজস্ব নির্ধারণ করার পদ্ধতিকে বলা হয় ‘জাবতি’। ‘জাবত’ মানে নির্ধারণ।

৩.২ ‘মনসব’ কী?

উত্তর : আকবর সামরিক ব্যবস্থায় একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন করেন। সেটি ছিল তাঁর মনসবদারি ব্যবস্থা।মনসব একটি আরবি শব্দ, এর অর্থ উঁচু স্থান। আকবরের শাসনব্যবস্থায় প্রশাসনিক পদগুলিকে বলা হতো মনসব।

৩.৩ বারো ভূঁইয়া নামে কারা পরিচিত ছিলেন?

উত্তর : আকবরের ছেলে ও উত্তরসূরি জাহাঙ্গিরের সময় (১৬০৫-১৬২৭ খ্রিস্টাব্দ) বাংলার স্থানীয় হিন্দু জমিদার ও আফগানরা মুঘলদের বিরুদ্ধে বার বার বিদ্রোহ করেছে। এই বিদ্রোহীরা এক সঙ্গে ‘বারো ভূঁইয়া’ নামে পরিচিত ছিলেন। এদের মধ্যে প্রতাপাদিত্য, চাঁদ রায়, কেদার রায়, ইশা খান প্রমুখ ছিলেন উল্লেখযোগ্য।

৪. চার-পাঁচটি বাক্যে উত্তর দাও :

৪.১ আবুল ফজল ও আবদুল কাদির বদাউনি কারা ছিলেন?

উত্তর : 

আবুল ফজল ও আব্দুল কাদির প্রদাউনি

আকবরের আমলের এক বিখ্যাত ঐতিহাসিক ছিলেন আবুল ফজল আল্লামি (১৫৫১-১৬০২ খ্রিঃ)। তিনি আকবরের গুণাবলি সম্বন্ধেই লিখেছিলেন। কিন্তু যে কোনো সময়ের ইতিহাস জানতে হলে শুধু ভালো কথা জানলেই হয় না। সে যুগের সমস্যার কথাও জানতে হয়। এই ধরনের সমালোচনা পাওয়া যায় সে যুগের আর একজন ঐতিহাসিক আব্দুল কাদির বদাউনির (১৫৪০-১৬১৫ খ্রিঃ) লেখায়। এঁরা দুজনেই মুঘল দরবারে এসেছিলেন ১৫৭৪ খ্রিস্টাব্দে। কিন্তু আবুল ফজল হয়ে উঠেছিলেন আকবরের প্রিয় পাত্র। একই ঘটনার দু-ধরনের বিবরণ পাওয়া যায় এঁদের দুজনের লেখায়।

৪.২ তুমি কী মনে করো যে রাজপুত নীতির দ্বারা মুঘলরা ভারতীয় শাসকদের মুঘল প্রশাসনের অঙ্গীভূত করেছিল? তোমার উত্তরের সপক্ষে যুক্তি দাও।

উত্তর : মুঘল বাদশাহ হুমায়ুন বুঝতে পেরেছিলেন যে, ভারতবর্ষের ওপর আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করতে গেলে রাজপুতদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক রাখা দরকার। কারণ তারাই ভারতবর্ষের বিশাল অঞ্চলের জমিদার।

   এই ধারণা থেকেই বাদশাহ আকবর মৈত্রী ও যুদ্ধনীতির সাহায্যে রাজপুতদের মনসবদারি ব্যবস্থার মধ্যে নিয়ে আসেন। মুঘল বাদশাহ ও শাহজাদাদের সঙ্গে বেশ কিছু রাজপুত পরিবারের মেয়েদের বিয়েও হয়। আকবর হিন্দু পত্নীদের নিজেদের ধর্মমত পালনের অধিকার দিয়েছিলেন। তিনি হিন্দুদের ওপর থেকে তীর্থকর ও জিজিয়া কর তুলে দেন এবং যুদ্ধবন্দিদের জোর করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করাও নিষিদ্ধ করেন। আকবরের এই উদারনীতির ফলে মুঘলরা রাজপুত বীরদের নিজেদের পাশে পেয়েছিল।

   জাহাঙ্গির পিতার নীতিই অনুসরণ করেন। তাঁর আমলে মেওয়াড়ে মুঘলদের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয়। রানা প্রতাপের পুত্রঅমর সিংহ মুঘলদের বশ্যতা স্বীকার করেন (১৬১৫ খ্রিস্টাব্দ)। তিনি মুঘল দরবারে উঁচু মনসব পান।

    শাহজাহানের আমলেও রাজপুতদের সঙ্গে মুঘলদের মিত্রতা বজায় ছিল। রাজপুতরা সুদূর মধ্য এশিয়ার বলখ, বদখশান প্রভৃতি অঞ্চলে মুঘলদের হয়ে যুদ্ধ করতে যেত। এই আমলেও রাজপুতদের উঁচু পদ দেওয়া হত।

ঔরঙ্গজেবের সময়ে সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় রাজপুতরা মনসবদারি ব্যবস্থার আওতায় এসেছিল। তবে এসময়েই রাজপুতদের সঙ্গে মুঘলদের প্রীতির সম্পর্ক নষ্ট হয়। মারওয়াড়ের রাঠোর রাজপুত রানা যশোবন্ত সিংহ প্রথমে বাদশাহের বিরোধী ছিলেন। তবে পরে তিনি বড়ো আকারের মনসব পান। তাঁর মৃত্যুর পর উত্তরাধিকার নিয়ে মারওয়াড় রাজ্যের রাজধানী যোধপুরে গণ্ডগোল শুরু হয়। মুঘলরা এই রাজ্যটি পুরোপুরি দখল করে নেয়। এর ফলে শুরু হয় রাঠোর যুদ্ধ (১৬৭৯ খ্রিস্টাব্দ)। এই যুদ্ধে মেওয়াড় রাজ্য মারওয়াড়ের পক্ষে ছিল। রাঠোর যুদ্ধ মুঘলদের পক্ষে লাভজনক হয়নি।উপরন্তু, আকবর জিজিয়া কর তুলে নেওয়ার একশো বছর পরে ঔরঙ্গজেব আবার জিজিয়া কর চাপিয়েছিলেন (১৬৭৯ খ্রি:)।অর্থাৎ আকবর থেকে ঔরঙ্গজেব পর্যন্ত মুঘলদের রাজপুত নীতিতে অনেক মিল ছিল আবার কোনো কোনো দিকে অমিলও ছিল ।

Class 7 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education) – Click Here

SWG Academy

Class 7 Model Activity Task Geography Part 7 October

মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক

সপ্তম শ্রেণি

পরিবেশ ও ভূগোল

১. বিকল্পগুলি থেকে ঠিক উত্তরটি নির্বাচন করে লেখো :

১.১ ভূআলোড়নের ফলে সৃষ্ট ফাটলগুলোর মাঝের ভূভাগ ওপরে উঠে যে ভূমিরূপ সৃষ্টি করে তা হলো—

ক) মহাদেশীয় মালভূমি 

খ) স্তূপ পর্বত

গ) আগ্নেয় পর্বত

ঘ) লাভা মালভূমি

উত্তর : খ) স্তূপ পর্বত

১.২ দুটি নদীর মধ্যবর্তী স্থলভাগ হলো-

ক) নদী অববাহিকা

থ) দোয়াব

গ) মোহনা

ঘ) ধারণ অববাহিকা

উত্তর : থ) দোয়াব

১.৩ একটি পাললিক শিলার উদাহরণ হলো-

ক) গ্রানাইট

খ) ব্যাসল্ট

গ) মার্বেল

ঘ) চুনাপাথর

উত্তর : ঘ) চুনাপাথর

১.৪ ঠিক জোড়াটি নির্বাচন করো-

ক) দক্ষিণ আফ্রিকা – উষ্ণ জলবায়ু

খ) চিনদেশীয় জলবায়ু – খেজুর গাছ

গ) জাম্বেজি নদী – ভিক্টোরিয়া জলপ্রপাত

ঘ) আফ্রিকার পূর্ব দিক – ভূমধ্যসাগর

উত্তর : গ) জাম্বেজি নদী – ভিক্টোরিয়া জলপ্রপাত

২. একটি বা দুটি শব্দে উত্তর দাও :

২.১ ভারতের একটি পলিগঠিত সমভূমির নাম লেখো।

উত্তর : ভারতের একটি পলিগঠিত সমভূমির নাম হলো উত্তর ভারতের সমভূমি।

২.২ নদীর কোন প্রবাহে ভূমির ঢাল বেশি থাকায় নদীর শক্তি বৃদ্ধি পায়?

উত্তর : নদীর উচ্চ প্রবাহ বা পার্বত্য প্রবাহে ভূমির ঢাল বেশি থাকায় নদীর শক্তি বৃদ্ধি পায়।

২.৩ কোন শ্রেণির মৃত্তিকায় বালি ও কাদার পরিমাণ প্রায় সমান থাকে?

উত্তর : দোআঁশ মৃত্তিকায় বালি ও কাদার পরিমাণ প্রায় সমান থাকে।এটি একটি পলিমাটির রূপ।

২.৪ দক্ষিণ আফ্রিকার তৃণভূমি কী নামে পরিচিত?

উত্তর : দক্ষিণ আফ্রিকার তৃণভূমি ভেল্ড নামে পরিচিত।

৩. সংক্ষিপ্ত উত্তর দাও :

৩.১ নদীর মোহনায় ব-দ্বীপ সৃষ্টির দুটি শর্ত উল্লেখ করো।

উত্তর : নদীর মোহনায় ব-দ্বীপ সৃষ্টির দুটি শর্ত হলো –

1. নদীতে পলির পরিমাণ অনেক বেশি হলে এবং ভূমির ঢাল অনেকটাই কমে গেলে বদ্বীপ সৃষ্টি হতে পারে।

2. নদীর বহন ক্ষমতা কমে গেলে এবং প্রবল সমুদ্রস্রোত না থাকলে নদীর সঙ্গমস্থলে বদ্বীপ গড়ে ওঠে।

৩.২ ‘জলবায়ু মৃত্তিকা সৃষ্টির অন্যতম প্রধান নিয়ন্ত্রক’— বক্তব্যটির যথার্থতা বিচার করো।

উত্তর : মৃত্তিকা গঠনে জলবায়ু সর্বাপেক্ষা সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। জলবায়ুর প্রধান দুটি উপাদান হলো বৃষ্টিপাত ওউষ্ণতা।

বৃষ্টিপাত: বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ও তীব্রতা বেশি হলে মৃত্তিকা আম্লিক হয়ে যায় এবং মৃত্তিকা তাড়াতাড়ি সৃষ্টি হয়।

উষ্ণতা: কোন স্থানে উষ্ণতা বেশি হলে মাটির স্তর গুলি বেশ ভালোভাবে তৈরি হয় অর্থাৎ মাটি গভীর হয়। মাটিতে জৈব পদার্থ বেশি হয়।

৪. নীচের প্রশ্নটির উত্তর দাও :

৪.১ সাহারার জলবায়ু কীভাবে সেখানকার মানুষের জীবনযাত্রাকে প্রভাবিত করে?

উত্তর : সাহারা মরুভূমি পৃথিবীর সর্বাপেক্ষা বৃহত্তম এবং উষ্ণতম মরুভূমি। এই মরুভুমি স্থানীয় বাসিন্দাদের জীবনে বেশ প্রভাব ফেলে। নিম্নে তা সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো-

1. এই স্থানে দিনের বেলা ভীষণ গরম থাকে প্রায় 58 ডিগ্রী সেলসিয়াস। রাত্রেবেলা বেশ ঠান্ডা প্রায় 4 ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাত ও দিনের তাপমাত্রা এত পার্থক্য বেশি হওয়ায় এই স্থানের বাসিন্দাদের জীবনযাত্রায় পার্থক্য লক্ষ্য করা যায়।

2. এই স্থানের ক্যাকটাস জাতীয় গাছপালা দেখা যায় যেমন ঘাস, খেজুর ইত্যাদি। এই স্থানে খাদ্যের অসুবিধা থাকায় মানুষেরা সাধারণত যাযাবর হয়। উট নিয়ে নিয়ে এরা এক স্থান থেকে অন্য স্থানে খাবারের সন্ধানে ঘুরে বেড়ায়।

3. পশুর দুধ,মাংস এদের প্রধান খাদ্য এছাড়াও এই স্থানের বিশেষ কিছু গাছের রস এরা পানীয় হিসেবে পান করে।

সময়ের সাথে সাথে সাহারা পাল্টাচ্ছে জায়গায় জায়গায় ঘাস লাগানো হচ্ছে রাস্তা বানানো হচ্ছে। উটের বদলে ট্রাকের দ্বারা ব্যবসা করা হচ্ছে সুদূর ভবিষ্যতে বোধহয় সাহারার এই রুক্ষ ভয়াল চেহারা আর থাকবে না।

৫. নীচের প্রশ্নটির উত্তর দাও :

৫.১ ভঙ্গিল পর্বত ও আগ্নেয় পর্বত সৃষ্টির প্রক্রিয়াটি বর্ণনা করো।

উত্তর : 

ভঙ্গিল পর্বত সৃষ্টি:-

বর্তমানে যে স্থানে বিশালাকার ভঙ্গিল পর্বতগুলি অবস্থান করছে, সেই স্থানে পর্বত সৃষ্টির পূর্বে ছিল এক বিশাল অগভীর সমুদ্র বা মহীখাত।হাজার হাজার বছর ধরে ওইসব মহীখাতে উভয়দিকের স্থলভাগের ক্ষয়প্রাপ্ত পলি সঞ্চিত হলে মহীখাতের তলদেশ ক্রমশ বসে যায়।মহীখাতের তলদেশ ক্রমশ বসে গেলে পার্শ্ববর্তী ভূখণ্ড ক্রমশ মহীখাতের দিকে সরে আসতে থাকে এবং প্রবল চাপের ফলে মহীখাত ক্রমশ সরু ও গভীর হতে থাকে। এর ফলে মহীখাতে সঞ্জিত পাললিক শিলাস্তর সঙ্কুচিত হয় ও ভাঁজ যুক্ত হয়ে উপরে উঠে পড়ে। এইভাবে ভঙ্গিল পর্বতের সৃষ্টি হয়।

আগ্নেয় পর্বত সৃষ্টি:-

দুটি মহাদেশীয় মহাসাগরীয় পাত মুখোমুখি অগ্রসর হলে তাদের মধ্যে প্রবল। সংঘর্ষ ঘটে এবং ভারী নিমজ্জিত পাতটি গলে গিয়ে ম্যাগমা শিলাস্তরের ফাটল পথে ভূপৃষ্ঠে চলে এসে সঞ্চিত হয়ে আগ্নেয় পর্বতের সৃষ্টি করে।

 

ALL Class ALL Model Activities Click Here
 Class 6 Model Activity Task Part 7 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
 Class 6 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
 Class 7 Model Activity Task Part 7 (Bengali, English, History, Geography )Click Here

 Class 7 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)

Click Here
 Class 8 Model Activity Task Part 7 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
 Class 8 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
Class 9 Model Activity Task Part 7 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
Class 9 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here
Class 10 Model Activity Task Part 7 (Bengali, English, History, Geography )Click Here
Class 10 Model Activity Task Part 7 (Science, Mathematics, Health & Physical Education)Click Here

1 thought on “Class 7 Model Activity Task Part 7 October New 2021 | সপ্তম শ্রেণী মডেল অ্যাক্টিভিটি | Bengali, English, History, Geography”

Leave a Comment

Your email address will not be published.